অনি গলপো ১

হঠাৎ করেই আমার পেনিসে কি যেনো সমস্যা হতে থাকলো। কোন রকমেই বীর্য্য নির্গত হচ্ছিলো না বেশ কয়েকদিন ধরে। ব্যাপারটাকে আমি যতটাই মামূলী বলে ধরে নিয়েছিলাম, আমার বিদেশীনী স্ত্রী খুব একটা সহজভাবে নিতে পারলো না।
মাসামীকে বিয়ে করেছি প্রায় দুই বছর হয়ে গেলো। আমি তাকে ভালো করেই জানি যে, মাথায় যদি তার কোন একটা ছোটখাট পোকা ঢুকেই পরে, তবে তার নিদ্রাটুকু আর হয়ে উঠে না। সে রাতে, সে আমার পেনিসটাকে নিয়ে রীতীমতো গবেষনাই শুরু করে দিলো।

পরদিন আমার অফিস। খুব সকালেই রওনা দিতে হবে। তাই তাকে বারবার বললাম যে, আমাকে খানিকটা ঘুমুতে দাও। অথচ, সে খুব সহজভাবেই বললো, তোমার ঘুম তুমি ঘুমাও! আমি আরেকটু চেষ্টা করে দেখি, বীর্য্যপাত হয় কিনা?
কেউ যদি কারো পেনিসটা ধরে ধরে বীর্য্য বেড় করার মতো গবেষনা করতে থাকে, তাহলে কি সে আবার ঘুমুতে পারে নাকি? এই চমৎকার চেহারার অসাধারন ধরনের যৌন বেদনাময়ী মেয়েটাকে আবার কঠিন গলায় কিছু বলাও যায়না। প্রচণ্ড অভিমানী।
এই মেয়েটিকে কিছু বললেই মন খারাপ করে হাউ মাউ করে, চিৎকারই করতে শুরু করে। এই গভীর রাতে বেশী কিছু বললে, মাঝ রাতেই হাউ মাউ করা কান্নাকাটিতে, পুরু এলাকাটারই বারোটা বাজাবে। শেষে শুধু আমার ঘুমই নষ্ট নয়, প্রতিবেশীদের সবার ঘুমই হারাম করে দেবে।
আমার পেনিসের সমস্যাটা বড় কিছু না। যৌনবেদনাময় যে কোন ব্যাপারেই শক্ত আর দৃঢ় হয়ে উঠে ঠিকই! তবে যৌনকর্ম করার পর যে, স্বাভাবিক বীর্য্য নির্গত হবার কথা, বেশ কিছুদিন ধরে সেটাই শুধু হচ্ছিলো না। এমন একটা সমস্যা, আগেও একবার আমার হয়েছিলো। তবে, মাসামী নামের এই মেয়েটার সাথে বিয়ে হবার অনেক আগে। সেবারে সমস্যাটা কয়েকদিনেই খুব স্বাভাবিক ভাবেই মিটে গিয়েছিলো। এবারেও হয়তো স্বাভাবিকভাবেই সব কিছু ঠিক ঠাক হয়ে যাবে ভেবে, আমিও খুব নিশ্চিন্তই ছিলাম। তবে, সমস্যাটা দিন দিন জটিল করে তুলছে এই পাগলী মেয়েটা।
সে আমার পেনিসটাকে মুঠি করে ধরে নিয়ে, উন্মাদের মতো মৈথুন করে চলেছে, ঘন্টা দুই ধরে! তারপরও কোন কাজ হচ্ছে না দেখে, শোবার ঘর থেকে হঠাৎই বেড়িয়ে গেলো, আমার পেনিসটা মুক্ত করে। ভাবলাম, বোধ হয় বিরক্ত অথবা ক্লান্ত হয়ে গেছে বুঝি, আমার পেনিসটা দীর্ঘক্ষণ ধরে মৈথুন করতে করতে। যাক বাবা, বাঁচা গেলো। এবার হয়তো ঘুমুনো যাবে খানিকটা শান্তি মতোই। তেমনি একটা সস্তির নিঃশ্বাস ফেলে, আমি আর কিছুই বললাম না। চোখ দুটি বন্ধ করে ঘুমোনোরই চেষ্টা করলাম।
পঁচিশ মিনিটও বোধ হয় হয়নি। সারাদিনের অফিস, আর সন্ধ্যার পর থেকে মাসামীর শিশ্ন অত্যাচারে ঘুমটা প্রায় লেগেই উঠেছিলো। হঠাৎ পাশের ঘর থেকে প্রিন্টারের শব্দে, কাঁচা ঘুমটাই ভেঙে গেলো। আমি বালিশে কান ঢেকে, নড়ে চড়ে ঘুমানোরই উদ্যোগ করলাম। অথচ, মিনিট পাঁচেক পরই, প্রিন্টারের শব্দটা থামলো ঠিকই, তবে শোবার ঘরে ছুটে আসা মাসামীর পায়ের শব্দে, আরো বেশী উদ্বিগ্ন হয়ে উঠলাম। শুধু তাই নয়, মাসামী রীতীমতো, আনন্দ উল্লসিত গলাতেই আমাকে ডাকতে থাকলো, এই শুনছো? পেয়েছি!
মাসামীর গলা শুনে মনে হলো, আর্কিমিডিসের মতোই সে নুতন কিছু আবিস্কার করতে পেরে, আনন্দে চিৎকার করছে, ইউরেকা! ইউরেকা! এমন একটা ঘুম ঘুম ভাবের সময়ে, হঠাৎ বাতির আলোতে, চোখগুলো যেমনি ব্যাথায় ভরে উঠলো, তেমনি মেজাজটাও বিগড়ে গেলো আমার। এই মধ্যরাতে, কারো ইউরেকা শুনে বাহবা দেবার মতো কোন ম্যুড আমার ছিলো না। তবে, মাঝরাতে রাগ করতেও ইচ্ছে হলো না। আমি চোখ দুটি বন্ধ রেখেই বললাম, কি ব্যাপার? কিছু পেয়েছো নাকি?
মাসামী তার সরলতা ভরা গলাতেই খুব আগ্রহ করে বলতে থাকলো, ইন্টারনেটে বিভিন্ন ফীচারগুলো পড়ে দেখলাম। একটা ফীচারে লিখলো, একই মেয়ের সাথে দীর্ঘদিন যদি কেউ সেক্স করে, তাহলে নাকি কারো কারো সেক্সের প্রতি এক ঘেয়েমী চলে আসে। তখন নাকি তোমার মতো এমন সমস্যা অনেকেরই হয়। আমাদের সংসার জীবনও তো প্রায় দু বছর হয়ে গেলো।
মাসামীর কথাগুলো একদম ফেলে দেবার মতো ছিলো না। কেনো যেনো আমি হঠাৎই খানিকটা আতীতে ফিরে গেলাম। দীর্ঘদিন আগে আমার এই সমস্যাটার কথাটাও মনে করতে চাইলাম। আমার মনে পরলো, ঠিক তখন আমার একটি গার্ল ফ্রেণ্ড ছিলো ঠিকই, তবে সে ছাড়া আর কারো সাথে যৌন সম্পর্ক ছিলো না। তা ছাড়া দরকারও ছিলো না। কেনোনা, বিয়ের জন্যে মাসামীর সাথেই সব কথাবার্তা ঠিকঠাক হয়ে ছিলো। দিন তারিখ ঠিক করে আনুষ্ঠানিক বিয়ের ব্যাপারটাই বাকী ছিলো। আর তখন, মাসামীকে বিয়ে করে, সংসার পাতার জন্যেই, সুদূর অষ্ট্রেলিয়ার চাকুরীটা ছেড়ে দিয়ে, জাপানে এসেছিলাম মাত্র।
তখন ইয়োকোহামায় এক রুমের একটা বাসাতেই থাকি। মাসামী তখন সুদূর আকিতায় নিজ বাড়ীতে মা বাবার সাথেই থাকে। বিয়েটা হয়ে গেলেই, দুজনে সামাজিকভাবে একত্রে বসবাস করার কথা। ঠিক তেমনি একটা সময়েই অফিসের কাজে টকিওতে যেতে হয়েছিলো। কাজ শেষে, সন্ধ্যার পর রোপঙ্গির ফুটপাতেই পা রেখেছিলাম।
রাতের শহর রোপঙ্গি! হঠাৎই এক নিগ্রো চেহারার যুবক আমার পথ রোধ করে দাঁড়িয়ে বলেছিলো, ৫০% ডিসকাউন্ট! ব্রাজিল, মেক্সিকো, আফ্রিকা, ফিলিপীন সহ বিভিন্ন দেশের অসংখ্য মন মাতানো ন্যুড ড্যান্সার! প্লীজ অন্ততঃ আধা ঘন্টা!
জীবনে তো অনেক অভিজ্ঞতাই হলো! মাত্র কয়েক হাজার ইয়েনে যদি, বিভিন্ন দেশের ন্যুড ড্যান্সারদের চোখের সামনে দেখা যায়, মন্দ কি? আমি এক কথাতেই রাজী হয়ে গেলাম।

আজকাল জাপানের এইসব এলাকাগুলো টিকিয়ে রেখেছে, ইরান, পাকিস্তান, ব্রাজিল সহ আফ্রিকার নিগ্রোরাও। এদের অধিকাংশই জাপানে অবৈধভাবে বসবাস করে। শুধুমাত্র জীবিকার টানে। জাপানীজদের সাথে ঠকবাজী করলেও, কখনো বিদেশীদের সাথে ঠকবাজী করেনা। তা আমি জাপানে আসামাত্রই অনুমান করতে পেরেছিলাম। তাই, সেই নিগ্রোটিকে বিশ্বাস করেই, নাম মাত্র কয়েক হাজার ইয়েনের বিনিময়ে, সেই ন্যুড বারে ঢুকেছিলাম।

এমন কোন ন্যুড বার, জীবনে আমার প্রথম নয়। ঝলমলে আলোতে নগ্ন নর্তকীদের বক্ষ দোলানো নৃত্য আমার বাংলাদেশ সহ, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, ফ্রান্স, অনেক জায়গাতেই উপভোগ করার সুযোগ ঘটেছিলো। তবে, মুগ্ধ হলাম তখনই, যখন একটি মেয়ে আমার পাশে বসে, এক কাপ স্যাম্পেনের বদলে, নিজের দেহটাকেই উজার করে দিতে চাইলো।
ব্রাজিল কন্যা! পৃথিবীতে গায়ের রং এর মর্যাদা অনেকে, ইউরোপীয়ানদেরই দিয়ে থাকে। সেই হিসেবে পোলিশ গার্লদের গায়ের রং সহ সোনালী চুলের মর্যাদা আমি সব সময়ই দিয়ে থাকি। তারপর হলো জাপানীজ গার্ল! যার কোন তুলনাই আমি খুঁজে পাইনা। তবে, ব্রাজিল আর ফিলীপিন গার্লদের গায়ের রং কেনো যেনো আমাকে উন্মাদ করে তুলে, তা আমি নিজেও বুঝিনা। সেই মেয়েটির এমন একটি প্রস্তাবে, কিছুতেই না বলতে পারলাম না। কারন, অদ্ভুত চমৎকার চেহারা! ব্রাজিলের অধিকাংশ এলাকার মেয়েদের গায়ের রং শ্যাম হলেও, উত্তরাংশের মেয়েরা সোনালী বর্ণেরই হয়ে থাকে। সোনালী চুলের সেই মেয়েটির গায়ের রংও সোনালী। গোলাপী সরু ঠোট। ন্যুড ড্যান্সার বলে, বক্ষ তো নগ্নই! ভরাট বক্ষ! নিপল গুলো ঈষৎ গোলাপী! আমার শিশ্ন মহাশয় উত্তপ্ত হতে হতে আর পারছিলো না।
মেয়েটি আমার হাত টেনে ধরে, একটি প্রাইভেট কামড়ায় নিয়ে গিয়ে, একটি আরাম কেদারায় ঠেলেই বসিয়ে দিলো। তারপর শুরু করলো, বিদেশী উত্তাল মিউজিকের তালে তালে, উত্তাল এক নৃত্য! বক্ষ দোলানো, পাছা আর সোনালী কেশের যোনী এলাকার অভিনব কৌশল! মেয়েটি নাচের ছন্দে ছন্দেই আমার দেহ থেকে শার্ট, প্যান্ট সহ, একে একে পুরুপুরি বিবস্ত্র করেই নিলো। তারপর, আমাকে টেনে তুলে, কিভাবে আমার দেহটাকে নাচাতে থাকলো, কিছুই টের পেলাম না। অতঃপর শুরু হলো চুমু! চুমু তো নয়, এক পাগলা জিভ নৃত্য! নর্তকীদের জিভও এমন ছন্দে ছন্দে নাচে নাকি? সে তার জিভটাকে দিয়ে, আমার জিভটাকে নাচাতে থাকলো দুস্তর মতো! অতঃপর ব্যাস্ত হয়ে পরলো, আমার পেনিসটা নিয়ে।
পাগলা নৃত্যের তালে তালে, আমার লিঙ্গটা মুঠিতে নিয়ে পাগলা নৃত্যতেই মাতিয়ে তুলতে থাকলো। সত্যিই তখন আমার বীর্য্যপাতটুকু হতো না। ঘন্টার পর ঘন্টা মৈথুন করে, কিংবা সেই গার্ল ফ্রেণ্ডটির সাথে সহবাস করেও বীর্য্যপাত ঘটাতে পারতাম না। সেই পাগলা নর্তকীর হাতের মুঠোয়, আমার লিঙ্গখানি শুধু কঠিন থেকে কঠিনতর হয়েই উঠতে থাকলো।
স্বর্গ আর কাকে বলে? সেই নর্তকীটির সাথে আমার আর যৌন কর্ম করার সুযোগ হলো না। তার হস্ত নৃত্যে ভরা মৈথুনে, হঠাৎই আমার লিঙ্গটা থেকে, আগ্নেয়গিড়ির গলিত ধারার মতোই গলগলিয়ে বীর্য্য বেড়োতে থাকলো। মেয়েটিও যেনো স্বার্থকতার হাসি নিয়ে, আমাকে চুমুতে চুমুতে ভরিয়ে দিয়ে বললো, কেমন লাগলো?

সেই ঘটনার পর, আমার পেনিসটা পুনরায় স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে এসেছিলো। অথচ, তখন ব্যাপারটাকে ঠিক তেমন করে ভাবিনি। মাসামীকে বিয়ে করার পর, ধরতে গেলে অন্য কোন মেয়ের কথা ভাবতেই পারিনা। কারন, এমন যৌন বেদনাময়ী আর অভিমানী প্রকৃতির একটি বৌ ঘরে থাকতে, অন্য রমণীর কথা ভাবাই যায়না। কিন্তু, মাসামী যেসব ফিচারের কথা বলছে, তার মানে, সে কি আমাকে অন্য কারো সাথে সেক্স করার অনুমতি দিতে চাইছে নাকি? আমি অনেকটা খুশী হয়েই উঠে বসে বললাম, তাহলে আমাকে কি করতে হবে?
মাসামী এতক্ষণ যা করেছে, তা হলো ইন্টারনেটের বিভিন্ন সাইট থেকে, পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সব নগ্ন মডেলদের ছবিই শুধু প্রিনট আউট করে নিয়েছে। আর সেসব ছবি গুলোই বিছানার উপর ছড়িয়ে রেখে বললো, তোমাকে তো আর অন্য কোন মেয়ের সাথে সেক্স করতে দেয়া যেতে পারে না। তাই ইন্টারনেট থেকে খোঁজে খোঁজে কয়েকটা সেক্সী ন্যুড মডেলের ছবি প্রিন্ট করে নিলাম। এগুলোর দিকে একবার তাঁকিয়ে দেখো তো! কোনটি তোমার ভালো লাগে! মনে মনে ভাবো, তার সাথেই সেক্স করছো! আমি আবারো তোমার পেনিসটা মৈথুন করে দিচ্ছি। আমার মনে হয়, এবার কাজ হবে।
কি এক সমস্যায় পরলাম আবার? কিছু ন্যুড মডেলদের ছবির দিকে তাঁকিয়ে থাকবো আমি! আর আমার বউ আমার পেনিসটা মৈথুন করে দেবে? এমন ন্যুড ছবি দেখে দেখে, জীবনে যে হস্ত মৈথুন করিনি তাও তো নয়! কিন্তু, বউয়ের সামনে অন্য মেয়ের নগ্ন দেহ দেখার চক্ষু লজ্জাও তো আছে! তবে, প্রস্তাবটাতে ভালোই লাগলো আমার। কারন, বিয়ের পর, দীর্ঘ দিন ইন্টারনেটে ন্যুড কিংবা সেক্সুয়েল সাইটগুলোতে ভিজিট করা হয়ে উঠেনি। তার কারনও হলো মাসামী। কম্পিউটারের সামনে বসলেই, সে আমাকে কঠিন প্রহরাতেই রাখে। শুধু তা নয়, এসব সাইটে গমন করতে গিয়ে, মাসামীর সামনে কয়েকবারই হাতেনাতে ধরা পরে গিয়েছিলাম। আমার এসব নোংড়া সাইট ভিজিটের দৃশ্য দেখে, মাসামী অসম্ভব মন খারাপ করে, চোখের জলও ফেলেছে। চোখের জল ফেলতে ফেলতে, এমনও বলেছে, আমি কি দেখতে এতই খারাপ? এতই যদি আমাকে অপছন্দ ছিলো, তাহলে বিয়ে করলে কেনো? জাপানে এলে কেনো?
অথচ, সেই মাসামী এখন নিজের ইচ্ছাতেই বলছে, এসব দেখতে! তাহলে মন্দ কি?
মাসামীর রূচি আছে বলতে হবে। যে সব মডেলদের ছবি বিছানার উপর সাজিয়ে রেখেছে, তার সবগুলোই প্রচণ্ড সেক্সী! সবচেয়ে অভিভূত হলাম, এদের মাঝে আমার অতি প্রিয় মডেল, এঞ্জেলা মেলিনীও রয়েছে। যার একটিমাত্র ভিডিও হাতে পাবার জন্য, চার হাজার টাকা সহ, চার সপ্তাহ অপেক্ষা করেছিলাম। আমি এঞ্জেলা মেলিনীর ছবিটির দিকেই মনোযোগ দিলাম। বক্ষ খুব একটা আকর্ষনীয় না, তবে ঠোটের শেইপগুলোই আমাকে পাগল করে তুলে। সেই ঠোট যুগলই আমার পেনিসটাকে দৃঢ় করে তুলতে থাকলো। আর মাসামী আমার পেছনে বসে, তার নরোম বক্ষ আমার পিঠে ঠেকিয়ে, থুতনীটা আমার বাম ঘাড়ে রেখে, ডান হাতটা বাড়িয়ে দিলো আমার লিঙ্গটার দিকে। তারপর, আমার লিঙ্গটা মুঠি ভরে ধরে, মৈথুন করতে থাকলো প্রাণপনে।
মাসামী মৈথুনের পর মৈথুনই করে চললো। অথচ, আমার পেনিসের বীর্য্যপাত ঘটার কোন লক্ষণই দেখা গেলো না। মাসামী কি ক্লান্ত হয়ে পরলো নাকি? তার মৈথুনের গতিটা কেমন যেনো মন্থর হয়ে হয়ে, হঠাৎই থেমে গেলো। আমি ডাকলাম, মাসামী!
মাসামী কোন জবাব দিলো না। ঘুমিয়ে পরলো নাকি? আমি ঘাড় কাৎ করে তাঁকালাম। আহারে বেচারী! আমার ঘাড়ে মাথা রেখেই ঘুমিয়ে পরেছে। মাসামীর যৌন বেদনায় ভরা ঘুমন্ত চেহারাটা দেখে, আমার লিঙ্গটা আরো উত্তেজিত হতে থাকলো। আমি তাকে সযতনে বিছানায় শুইয়ে দিয়ে, নগ্ন ছবিগুলো নিয়ে এগিয়ে গেলাম বসার ঘরে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *