অফিসের নতুন জুনিয়ার এর সাথে

অফিসের ছুটি প্রায় আধ ঘন্টা আগে হয়ে গেছে। চুপচাপ একা একা কেবিনে বসে ল্যাপটপে মেল চেক করছি। যাদের নিজেদের গাড়ি আছে তারা অনেকে চলে গেছে। বাইরে ঝড় বৃষ্টি এখন কমেনি, সেই বিকেল চারটে থেকে শুরু হয়েছে। আমার একটু তাড়া ছিল বের হবার কিন্তু বের হবার জো নেই। রেজিগ্নেশান দিয়ে দিয়েছি গত সপ্তাহে, এক বড় কম্পানিতে ভাইস প্রেসিডেন্ট টেকনিক্যাল হতে চলেছি কিছু দিনের মধ্যে। বেড় হতে হবে আমাকে, ঘোরার চেয়ে বড় কথা হচ্ছে সেই জায়গা, কিন্তু বৃষ্টিতে কি করে বের হব সেটা বড় চিন্তা।

কেবিনের দরজা খুলে বেড়িয়ে দেখলাম দ্বিতীয় সিফটের ইঞ্জিনিয়ার গুলো বসে আছে, বেশির ভাগ ডেস্ক খালি। কাফেটেরিয়ার দিকে হেঁটে গেলাম, কেউ নেই কোথাও। ঘড়ি দেখলাম সাড়ে সাতটা বাজে, এর পরে বের হলে নৈনিতাল পৌঁছতে দেরি হয়ে যাবে, আমাকে যেতে হবে তার ওপরে, মুন্সিয়ারি। ঘুরতে যাবার বাতিক আছে তার সাথে বাতিক আছে একটু ফটো তোলার। কফি কাপ নিয়ে কফি মেশিনের দিকে এগিয়ে যেতেই পেছন থেকে শুনতে পেলাম একটা মিষ্টি গলা।
“কি স্যার এখন বাড়ি যাননি?” ঘাড় ঘুড়িয়ে দেখলাম, দেসদিমনা সাহারিয়া। বাবা মা যেন খুঁজে খুঁজে নাম রেখেছিল মেয়ের, যেমন নাম তেমনি দেখতে। দেসদিমনা অফিসের নতুন জুনিয়ার এইচ.আর ম্যানেজার, কত আর বয়স হবে, আন্দাজ করে নেওয়া যাক, এই পঁচিশ পেরিয়েছে। আসামিজ মেয়ে, দেখতে বেশ সুন্দরী বলা চলে, গায়ের রঙ বেশ ফর্সা। মেয়েটা অফিস জয়েন করার পরে এইচ.আর এর কাছে সব ছেলের কাজ যেন বেড়ে যায়। বেশ একটু খোলামেলা পোশাক আশাক পরে মেয়েটা, টাইট টপ যাতে উদ্ধত বুকের আকৃতি বেশ ভালো ভাবে ফুটে উঠত, এমন কি মাঝে মাঝে ঘাড়ের কাছ থেকে তো টপ সরে গিয়ে ভেতর ব্রার কাঁধের স্ট্রাপটা পর্যন্ত দেখা যেত। কোনদিন গোলাপি, কোনদিন নীল কোনদিন কালো। সরু কোমর, অবশ্য কোমর দেখতে কেউ হয়ত পায়নি, তবে বেশির ভাগ দিন হাঁটু পর্যন্ত জিন্স পরে আসত, মলায়ম কোমল পায়ের গুলি দেখে তো ছেলেদের প্যান্ট ছোটো হয়ে যেত। সুগোল নিতম্ব ওপরে জেঁকে বসে থাকা জিন্স, চলনে মনে হত যেন দুটো নরম কোমল ময়দার তাল ছন্দে ছন্দে দুলছে, আর তার সাথে পেছনে দাঁড়িয়ে থাকা ছেলে গুলোর আহা উঁহু অস্ফুট আওয়াজ। আমার কপাল খারাপ, বসি কেবিনে, পদ ডাইরেক্টার টেকনিকাল তাই লাস্যমায়ির রূপ আমার চোখের আড়ালে থাকতো বেশির ভাগ সময়ে।
আমি হেসে জিজ্ঞেস করলাম “তোমার কি খবর, তুমি এখন অফিসে কেন?”
“কি করবো স্যার যা বৃষ্টি হচ্ছে তাতে কি আর বের হওয়া যায়? আমার তো আর আপনার মতন গাড়ি নেই আর আমার কোন বয়ফ্রেন্ড নেই যে আমাকে বাড়ি পৌঁছে দেবে।” হেসে উত্তর দিল দেসদিমনা, বেশ সুন্দর সাজানো দু’পাটি মুক্তর মতন সাদা দাঁত, আবার বাঁ দিকে একটা গজ দাঁত আছে যার জন হাসিটা আর বুক চিরে দিল। মুখ খানি গোল, পটল চেরা চোখ বাঁকা ভুরু মনে হয় প্রতিদিন প্লাক করে ধনুকের আকার নিয়েছে।
“হুম, নিড সাম কফি?” আমি জিজ্ঞেস করলাম দেসদিমনা কে।
“সিওর স্যার।” আমি দুটো কফি কাপে কফি মেশিন থেকে কফি ঢেলে একটা ওর দিকে এগিয়ে দিলাম। আমার হাত থেকে কফি কাপ নিয়ে, গাড় বাদামি রঙ মাখা ঠোঁট দিয়ে কাপে ছোটো চুমুক দিয়ে প্রশ্ন করে “বাড়ি কখন যাবেন?”
“না আমি ঠিক বাড়ি যাচ্ছি না, আমি একটু বেড়াতে বের হচ্ছি আজ। লঙ ড্রাইভ টু মাউন্টেন্স।”
ভুরু কুঁচকে বলল দেসদিমনা “কোথায় স্যার?”
“উত্তরাখণ্ড, তবে যেখানে যাচ্ছি নাম হয়তো শোননি তুমি। মুন্সিয়ারি।”
“না স্যার নাম শুনিনি।”
আমি কেবিনের দিকে পা বাড়ালাম, না বেশি দেরি করলে চলবে না, কফি শেষ করে বেড়িয়ে পরা যাক। রাকস্যাক, ক্যামেরা, তাঁবু, সব কিছু গাড়ির পেছনে রাখা। আমার জন্য আমার ঘোরার জিনিস গুলো অপেক্ষা করছে। আমার সাথে সাথে হাটতে লাগলো দেসদিমনা, একটু খানি পেছনে, সম্ভ্রম বোধ আছে মেয়েটার।
আমি দরজা খুলে আমার কেবিনে ঢুকতে যাবো, দেসদিমনা জিজ্ঞেস করল “স্যার আপনি যখন বের হবেন আমাকে বাড়িতে ছেড়ে দেবেন, প্লিস।” ঐ রকম সুন্দরী মেয়ের কাতর আবেদন কে উপেক্ষা করতে পারে।
আমি হেসে উত্তর দিলাম “দেসদিমনা আমি তো সোজা হাইওয়ে ধরব, তবে রাস্তার মাঝে তোমার বাড়ি পড়লে নিশয় আমি তোমাকে বাড়ি ছেড়ে দেব।”
“আপনি কোনদিক থেকে যাবেন, স্যার?”
“আমি তো সোজা নয়ডা পাড় করে হাইওয়ে-24 ধরব। তোমার বাড়ি কোথায়?”
“হুম, তাহলে কি করে হবে স্যার?” কেমন একটু যেন হতাশা ভাব চোখে, কফির কিছুটা গোঁফের কাছে লেগে আছে, সেটা জিব বের করে চেটে নিল দেসদিমনা। গোলাপি জিব যখন গাড় বাদামি ঠোঁটের ওপরে ঘুরে গেল, আমার মনে হল যেন আমাক সারা মুখের ওপর দিয়ে ঐ জিবটা ঘুড়িয়ে নিয়ে গেল মেয়েটা। বুক ভরে একটা নিঃশ্বাস নিল, সাথে সাথে উন্নত বক্ষ যুগল ফুলে ফেপে উঠলো চোখের সামনে “কাল্কাজি, থাকি।” নিঃশ্বাস নেওয়ার হাল্কা নীল টপের নিচের বুকের ওপরের ব্রার লাইনিং পর্যন্ত ফুটে উঠল। কুঁচের ওপরে দুটি বৃন্ত যেন ফেটে বের হবে এই।
“ওকে, আমি নামিয়ে দেব তোমাকে। এই কিছুক্ষণের মধ্যে আমি বের হব।”
“থ্যাঙ্কস স্যার।” বলে হেসে নিজের সিটের দিকে পা বাড়াল। আমি কেবিনের দরজা তো খুলেছিলাম ভেতরে ঢোকার জন্য, কিন্তু মেয়েটাকে পেছন থেকে দেখে ঢুকতে ভুলে গেলাম। কালো রঙের জিন্স কোমরের নিচের প্রতিটি অঙ্গের সাথে আঠার মতন জড়িয়ে। নিটোল নিতম্বের শেষের খাঁজ, সুগোল পেলব থাই সরু হয়ে নেমে এসে ছোটো গোল হাঁটু আর জিন্স শেষ। তারপরে তো অনাবৃত বক্র পায়ের গুচ্ছ সরু হয়ে নেমে ছোটো গোড়ালিতে গিয়ে মিশে গেছে। বাঁ পায়ের গোড়ালিতে আবার স্টাইল করে একটা পাতলা রূপোর চেন বাঁধা। হাঁটছে যেন, কাজিরঙ্ঘার মত্ত হস্তিনি, অসামান্য ছন্দে দুলছে নিতম্ব, তাতা থেইয়া। ঘাড়ের ঠিক নিচ পর্যন্ত নেমে আসা চুল, মাথার পেছনে একটা পনিটেল করে বাঁধা, মাথা নাড়ানোর ফলে দুলছে। ছিপছিপে পাতলা গড়ন নয়, বেশ ফোলা গড়ন, তবে অত্যধিক নয়, ঠিক যেখানে যত টুকু বেশি লাগে ঠিক তত টুকু বেশি আছে দেসদিমনার।
দেসদিমনা নিজের ডেস্কে বসে গেল, আমি নিজের কেবিনে ঢুকে পড়লাম। ল্যাপটপ খুলে দেখলাম একটা মেল এসেছে, পরের দিন সাতেকের জন্য আমি অফিসে থাকব না, তাই ভাবলাম মেলের উত্তর টা দিয়ে দেই।
“স্যার আসতে পারি?” আমি মাথা উঠিয়ে দেখলাম দরজা খুলে হাসি হাসি মুখ নিয়ে দাঁড়িয়ে দেসদিমনা। ঐ হাসি দেখলে কেউ কি আর না বলে থাকতে পারে, মাথা নাড়িয়ে ভেতরে আসতে বলে ইশারা করলাম সামনের চেয়ারে বসতে। টেবিলের ওপরে কাঁধের থেকে ব্যাগটা রেখে সামনের দিকে ঝুঁকে পড়ল একটু। আমি আর চোখে দেখলাম যে টপের ওপর দিয়ে, ভরাট বুকের মাঝের গভীর খাঁজ, সুডৌল বক্ষের কোমলতার ওপরে আলো ছায়ার লুকোচুরি খেলা। মেলের উত্তরে আর মনোনিবেশ করা কঠিন হয়ে দাঁড়াল আমার। প্রানপনে চোখ দুটি ল্যাপটপের স্ক্রিনে আবদ্ধ করে মেল টাইপ করতে বসলাম।
আমি ল্যাপটপের দিকে তাকিয়েই ওকে বললাম “একটা মেলের উত্তর দিয়ে বের হচ্ছি আমি।”
“ঠিক আছে স্যার, আপনি যখন বাড়ি পৌঁছে দিয়ে আসবেন তাহলে কোন চিন্তা নেই। আপনি কাজ সেরে নিন।”
আমি কিছুক্ষণের মধ্যে কাজ সেরে ওর দিকে মাথা উঠিয়ে দেখলাম যে ও রুমের এদিক ওদিকে দেখছে। আমি বললাম “চল আমার কাজ শেষ।”
“হ্যাঁ স্যার চলুন।” তারপরে একটু খানি কানপেতে কিছু শুনে বলল “স্যার মনে হচ্ছে বৃষ্টি কিছুটা বেড়ে গেছে। একটু দাঁড়িয়ে গেলে হয় না?”
“না, গাড়ি আছে তো সাথে কোন অসুবিধা হবে না। আর আমাকে বের হতে হবে না হলে আমার গন্তব্য স্থলে পৌঁছতে অনেক দেরি হয়ে যাবে”
“ওকে” ব্যাগ টা কাঁধে নিয়ে উঠে পড়ল দেসদিমনা, আমি সাথে সাথে ল্যাপটপ ব্যাগ গুছিয়ে একবার রুমের চারদিক দেখে বেড়িয়ে গেলাম।
নিচে নেমে দেখলাম যে, বৃষ্টিটা সত্যি বেড়ে গেছে, তবে বেড়িয়ে পরা ঠিক, একটু মাথা পাগল লোক আমি, একা একা ড্রাইভ করি, একা একা ঘুরে বেরাই। বৃষ্টি মাথায় নিয়ে পারকিঙ্গের দিকে এগিয়ে গিয়ে গাড়িতে উঠে পড়লাম, পাশের সিটে দেসদিমনা। তাকিয়ে দেখলাম, ড্যাসবোর্ডের ওপরে ব্যাগ রেখে, মাথার চুলটা খুলে নিয়ে একটু মাথা ঝাঁকিয়ে নিল। চুল থেকে কিছু জলের ছিটা আমার মুখে এসে পড়ল, আমার দিকে তাকিয়ে হেসে দিল। গাড়িতে স্টার্ট দিলাম।
গাড়ি রাস্তায় বের হতেই “স্যার আপনি একা ঘুরতে যাচ্ছেন?”
“হ্যাঁ।” চোখ সামনে রেখে গাড়ি চালাতে হবে, এই উচ্ছল তরঙ্গিণীর দিকে তাকালে এই বৃষ্টিতে গাড়ি নিয়ে আমাকে যমালয়ের পথ ধরতে হবে, সেটা আমি চাইনা।
“আমার না খুব ইচ্ছে করে বৃষ্টিতে লঙ ড্রাইভে যেতে।” গলায় বেশ উচ্ছাসের সুর।
চালানর ফাঁকে আড় চোখে তাকাই মাঝে মাঝে ওর দিকে। মাঝে মাঝে দু হাত তুলে আড়ামড়া ভাংছে দেসদিমনা, ছোটো হাঁটার টপ, ভাঁজ হয়ে কুঁচকে গিয়ে বগল পর্যন্ত দেখা যাচ্ছে, মসৃণ ত্বক, ছিটেফোঁটা রোঁয়ার নাম গন্ধ নেই। গা থেকে বেশ কেমন একটা মন মাতানো গন্ধ বের হচ্ছে, সাথে সাথে সারাদিনের একটা ক্লান্তির আঘ্রাণ মিশে সেই সুবাস আমার নাকের ভেতর দিয়ে মাথায় গিয়ে মাথার ঘিলুটা নিয়ে লোফালুফি খেলছে।
“তো বের হও না কেন?”
“কে নিয়ে যাবে আমাকে স্যার?” আমার দিকে তাকিয়ে খিলখিল করে হেসে বলল “আপনি?”
ভাবছিলাম বলে ফেলি, চল আমার সাথে ঘুরতে বেশ মজা করব, কিন্তু সেটা ঠিক বের হল না, হয়তো আমার বয়স আর অফিসের পদ আমাকে বাধা দিল “কেন, তোমার বয়ফ্রেন্ড নিয়ে যাবে।”
বয়ফ্রেন্ড নামটা শুনে দেসদিমনা যেন একটু ক্ষুণ্ণ হল “না স্যার, আমার নেই।”
আমি তো প্রায় আকাশ থেকে পড়ার মতন “কি বল তুমি, এত সুন্দরী মেয়ের কোন বয়ফ্রেন্ড নেই?”
হেসে বলে “না স্যার, একা আছি অনেক ভালো আছি।” তারপরে আমার দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করল “আপনি ও তো একা একা ঘুরতে যাচ্ছেন, কোন সাথী না নিয়ে।”
বড় পুরানো ব্যাথার জায়গায় ঘা দিল দেসদিমনা, উত্তর দেবার ভাষা হারিয়ে ফেললাম আমি। আমার সাথি আমার স্ত্রী, বড় ভালবাসার পাত্রী, সুকন্যা, আমার বুকের বাঁ দিক জুরে এখন ঘর বেঁধে আছে। বাবা মায়ের একমাত্র মেয়ে, ঠিক চোদ্দ বছর আগে আমাকে হটাৎ একদিন টাটা বাই বাই করে সেই যে আমার কোলে ঘুমিয়ে পড়ল আর জাগাতে পারলাম না আমি। ডাক্তারের দিকে চোখে আকুতি নিয়ে তাকিয়ে ছিলাম, একবার সুকন্যা কে ঘুম থেকে ভাঙ্গানর জন্য, কিন্তু কেউ শোনেনি আমার কথা। সবাই আমাকে বলল যে আমার সুকন্যা নাকি আর নেই, কি করে বিশ্বাস করি নেই, তার আগের দিন রাত পর্যন্ত আমি ওর হাত ধরে বসে ছিলাম হস্পিটালের বিছানার পাশে। আমাকে বলেছিল “সিগারেট বেশি খেওনা, আমার বুকে বড় ব্যাথা করে। আর স্নান করার পরে ভালো করে মাথা মুছবে না হলে তোমার সাইনাসের ধাত আছে কখন আবার সর্দি লেগে যাবে মাথা ব্যাথা শুরু করবে।”
আমি ডাক্তারকে বলেছিলাম যে আমার বাচ্চা চাইনা আমার সুকন্যা কে ফিরিয়ে দিক। না, কেউ আমার কথা শোনেনি, না ডাক্তার না উপরওয়ালা। বাচ্চাটা নাকি গলায় নাড়ি জড়িয়ে ভ্রুনের মধ্যে রাতেই মারা গেছিল, ব্লাডারে প্লাসেন্টা বিষাক্ত হয়ে গেছিল, কেউ বাঁচেনি। অত্যধিক রক্তক্ষরণের ফলে সুকন্যা অপারেশান টেবিলে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছিল। আমার সামনে শুধু তার সাদা কাপড়ে ঢাকা পার্থিব শরীর পরে ছিল। সুকন্যার মাথা কোলে নিয়ে কান্নার ভাষা হারিয়ে ফেলেছিলাম আমি।
আমি নিরুত্তর, এই বেদনা কাউকে বলার নয়। দেসদিমনা আমাকে জিজ্ঞেস করল “কি হল স্যার, চুপ করে গেলেন কেন? কিছু উল্টো পাল্টা জিজ্ঞেস করে ফেললাম নাকি আমি?”
চোখ দুটো জ্বালা করছে, কাঁদতে পারিনা সর্বসমক্ষে “না কিছু না।” বুক ভরে নিঃশ্বাস নিয়ে সামনের দিকে তাকিয়ে বললাম “ছাড়ো ওসব পুরানো কথা, তোমার কথা বল।”
“ঠিক আছে স্যার, মনে হল খুব একটা ব্যাথার জায়গায় নাড়া দিয়ে দিলাম আমি। সরি স্যার।”
“দ্যাটস ওকে।”
“আপনি যেখানে যাচ্ছেন সেই জায়গাটা কেমন?” সুরে একটু কৌতূহল।
“দারুন জায়গা, তিন বার গেছি। পাহাড় আমাকে ভীষণ ভাবে টানে, আমার মনে হয় যেন ওখানে থেকে যাই, কিন্তু পাপী পেট, কাজকর্ম না করলে খাবো কি।” হেসে উত্তর দিলাম। কাল্কাজি এসে গেছে, আমি গাড়ি ধিরে করে ওর দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞেস করলাম “তোমার বাড়ি কোনদিকে?”
মাথা নিচু করে হাতের আঙ্গুল নিয়ে খেলা করছে দেসদিমনা, আমার প্রশ্ন শুনে মাথা না উঠিয়ে বলল “স্যার এই বৃষ্টিতে আমার ঘরে যেতে ইচ্ছে করছেনা, খুব ঘুরতে যেতে ইচ্ছে করছে।”
“বেশ তো, যখন তোমার কোন বয়ফ্রেন্ড হবে তখন সে নিয়ে যাবে তোমাকে।” আমি হেসে উত্তর দিলাম। দেসদিমনা নিরুত্তর, আমি জিজ্ঞেস করলাম আবার “তোমার বাড়ি কোনদিকে বল। তোমাকে নামিয়ে দিয়ে আমাকে বের হতে হবে।”
আমার দিকে তাকাল দেসদিমনা, দু’চোখ কেমন যেন ভাসাভাসা “আপনার সাথে যেতে পারি, স্যার?”
 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *