আমার বিছানার দিকেই

আমার মতো তেরো চৌদ্দ বছর বয়সের মাঝামাঝি একটা বয়সে ছেলেরা জাংগিয়া পরতো কিনা জানিনা। মেয়েরা যেমনি জামার নীচে ব্রা জাতীয় পোষাকগুলো পরে থাকে, সে ধারনাও তখন আমার যেমনি ছিলোনা, তেমনি ছেলেদেরও যে প্যান্টের নীচে জাংগিয়া পরতে হয়, সে ধারনাও আমার ছিলোনা। অন্য কথায় বললে, আমি তখনো জাংগিয়া জাতীয় পোষাকটা পরতাম না, এবং ছিলোও না।Cute-Girl-Sucking-and-Fucking-Two-Guys-at-Once_thumb

সেদিন দুপুরেই জীবনে প্রথম, কাকতালীয়ভাবে কেয়া আপা এবং সিলভীকে দেখেছিলাম ব্রা পরতে, তাও আবার লুকিয়ে লুকিয়ে। কেয়া আপার অনুমানেই হউক, সেদিন অনেকটা ধরা পরেই, কেয়া আপার পাশে ঘুমানোর সৌভাগ্যটা হয়েছিলো। আর সে রাতেই কেয়া আপা কেনো যেনো, সারাটা রাত আমার নুনুটা মুঠিতে ধরেই ঘুমিয়েছিলো। আর সকাল বেলায়, অতি সোহাগ করেই তার মুখ থেকেই সুস্বাদু চর্বিত খাবার আমার মুখে তুলে দিয়েছিলো। যা আমার মনে চমৎকার কিছু অনুভুতিই জাগিয়ে তুলছিলো পর পর! আমার দেহ মনে তখন ভিন্ন ধরনের এক শিহরণই শুধু! এবং অনেকটা ঘোরের মাঝেই যেনো আমার মুহুর্তগুলো কাটছিলো।

স্কুলের জন্যে প্রস্তুতি নিলাম অনেকটা তাড়াহুড়া করেই। গোসলটা সেরে তাড়াহুড়া করেই সাদা গেঞ্জিটার উপর স্কুলের সাদা শার্ট আর নীল প্যান্টটা পরে নিয়ে, স্কুল ব্যাগটা নিয়ে ছুটলাম স্কুলের পথে। সেদিন আমার কি হলো বুঝলাম না। স্কুলে যাবার পথে, নিজের অজান্তেই অনেক উঠতি বয়সের মেয়ে সহ, বয়স্ক মেয়েদের বুকের দিকেও শুধু আমার চোখ দুটো ছুটে যেতে থাকলো। এমন কি স্কুলে যাবার পথে, তথা কথিত প্রিতীশ বাবুর বউকেও চোখে পরলো। তাকে আমি চিনি, আগেও অনেকবার দেখেছি। যিনি আমাদের পার্শ্ববর্তী স্কুলেরই অংকের টিচার! এবং আমাদের স্কুলের অংক স্যার প্রীতিশ বাবুর বউ। অথচ, কোন দিনও তার দিকে তাঁকানোর কথা ভাবিনি। আমি দেখলাম, প্রিতীশ বাবুর বউ এর ব্লাউজ ভেদ করে আসা ব্রা এর স্ট্রাইপ সত্যিই মনোমুগ্ধকর!

আমি বুঝলাম না, স্কুলে পৌঁছেও আমি স্কুলের ক্লাশমেইট মেয়েগুলো সহ দু এক ক্লাশ নীচে আর উপরের সব মেয়েদের বুকের দিকেই শুধু আমার নজর চলে যেতে থাকলো। এবং সবার বক্ষের একটা তুলনামুলক বিচারও মাথার মাঝে জড়ো হতে থাকলো। এমন কি ক্লাশে বসে, ঠিক আমার পাশেই মেয়েদের সারিতে বসা সিলভীর বুকের দিকেও তাঁকাতে থাকলাম আঁড় চোখে ক্ষণে ক্ষণে! যে বক্ষে অনুমান করলেই বুঝা যায়, স্কুল ড্রেসের নীল জামাটার তলাতেই রয়েছে কালকে দুপুরে দেখা সেই প্রিন্টের একখানি ব্রা! যা তার বক্ষকে স্কুল ড্রেসের নীল জামাটার উপর থেকেও চমৎকার করে ফুটিয়ে তুলে রেখেছে।

স্কুলে প্রথম পিরিয়ডটা ভালোই কেটেছিলো। দ্বিতীয় পিরিয়ড অংকের। সাক্ষাৎ সেই তথাকথিত কঠিন মানব প্রিতীশ বাবুরই ক্লাশ। সাধারণত পিন পতন নীরবতা থাকে তার ক্লাশে। প্রিতীশ স্যার যখন বোর্ডে অংক লিখছিলো, ঠিক তখনই পাশের বেঞ্চ থেকে সিলভী তার অংক খাতাটা আমার টেবিলেই ছুড়ে ফেললো। আমি খাতাটার খোলা পাতায়, সিলভীর মেয়েলী হাতের চমৎকার অক্ষরের লেখাগুলো পড়লাম। সিলভী লিখেছে, কালকে তুমি দরজার আড়ালে দাঁড়িয়ে আমাদের দেখেছিলে, তাই না?

আমি নিজে নিজেই ঘাবড়ে গেলাম। নিজেকে খানিকটা স্থির করে সিলভীর খাতায় লিখলাম, কোথায়? কখন? কি দেখার ব্যাপার? বুঝতে পারছিনা তো?

তারপর, প্রিতীশ স্যার যখন বোর্ডের দিকে ঘুরলো, তখন খাতাটা সিলভীর টেবিলে ছুড়ে ফেললাম।

সিলভী আবারও কি যেনো লিখে তার খাতাটা ছুড়ে ফেললো আমার টেবিলে। আমি পড়ে দেখলাম, সিলভী লিখেছে, আমি তোমার চোখ স্পষ্ট দেখেছি। মিথ্যে ভান করবেনা। আচ্ছা বলো তো, কালকে তোমার পরনে কি রং এর শার্ট ছিলো?

গতকাল আমার ক্রিকেট ম্যাচ ছিলো। পরনে সাদা টি শার্ট ছিলো, এটাই তো সত্য! আমি মিথ্যে লিখি কেমন করে? আমি সত্যিটাই লিখলাম, সাদা টি শার্ট।

সিলভী আবারও কি যেনো লিখে খাতাটা ছুড়ে দিলো আমার বেঞ্চে। আমি পড়লাম, এই তো মিলে গেলো! আমি স্পষ্ট দেখেছি, দরজার ফাঁকে সাদা পোষাকেই কেউ আমাদেরকে লুকিয়ে লুকিয়ে দেখছিলো! সেটা তো তুমিই ছিলে? তাই না?

আমি লিখলাম, কোথায়? আমি তো, কালকে সারাদিন মাঠে ছিলাম!

সিলভী আবারো কি যেনো লিখে, তার খাতাটা আমার টেবিলে ছুড়লো। ঠিক তেমনি একটি সময়েই প্রীতিশ স্যার এর নজর পরলো এদিকে। সে ডাকলো, এই, তোমরা খাতা ছুড়াছুড়ি করছো কেনো?

আমি থতমত খেয়ে গেলাম। তোতলামী করতে করতেই বললাম, না মানে!

প্রীতিশ স্যার ডাকলো, খাতাটা নিয়ে এদিকে এসো, দুজনেই!

আমি তৎক্ষণাত সিলভীর খাতাটা একবার পুরুপুরি বন্ধ করে, পুনরায় আনুমানিক একটা পৃষ্ঠার ভেতরে আঙুলী ঢুকিয়ে, খাতাটা খুলে, স্যারের দিকে এগিয়ে যেতে যেতে বললাম, না মানে! গতকাল সিলভী আমাকে এই অংকটাই দেখিয়ে দিতে বলেছিলো! গতকাল ভালো করে দেখিয়ে দিইনি বলে এখন বুঝতে পারছে না! তাই আমাকে বলছিলো, এই লাইনের পর এই লাইনটা কেমন করে আসলো?

প্রীতিশ স্যার কটমট করেই আমার দিকে তাঁকালো। তারপর বললো, তুমি অংকে ভালো, আমি জানি! আর সিলভী তো একটা দামিশ! তা অংক দেখিয়ে দিচ্ছিলে, ভালো করে দেখিয়ে দাওনি কেনো?

আমার মুখ ফসকেই বেড়িয়ে গেলো, না মানে, দরজার ফাঁক দিয়ে দেখছিলাম তো, তাই!

সিলভী সাথে সাথেই ফিস ফিস করে বললো, এই তো সত্যি কথাটা বেড়িয়ে গেলো! তুমি সত্যিই কালকে দরজার ফাঁক দিয়ে দেখেছিলে!

প্রীতিশ স্যার এর কানেও সিলভীর গলাটা চলে গেলো। প্রীতিশ স্যার শান্ত গলাতেই বললো, তা বাবু, দরজার ফাঁক দিয়ে অংক দেখাতে গেলে কেনো?

আমি অপ্রস্তুত হয়েই একটা কিছু বলতে গেলাম। কিন্তু, তার আগেই প্রীতিশ স্যার চেঁচিয়ে বললো, কি রে, তোর প্যান্টের দরজাও তো খোলা! তোর চড়ুই পাখি তো দরজার ফাঁক দিয়ে বেড়িয়ে আছে!

আমার বোতামের প্যান্ট। প্যান্টের তলায় জাংগিয়া জাতীয় কোন কিছু ছিলোনা। ধরতে গেলে গতকাল দুপুর থেকেই আমার নুনুটা এক ধরনের উত্তেজনার চাপেই রয়েছে। এই মুহুর্তে সিলভীর পাশে দাঁড়িয়ে থেকে, কখন যে চরম উত্তেজনার বশবর্তী হয়ে, প্যান্টের ভেতর থেকে দু বোতামের ফাঁক দিয়ে বেড়িয়ে পরেছিলো, নিজেই টের পাইনি। সিলভি সহ ক্লাশ শুদ্ধ সবাই আমার প্যান্টের ভেতর থেকে বেড়িয়ে আসা সটান হয়ে থাকা নুনুটার দিকেই তাঁকিয়ে থেকে অট্ট হাসিতে ফেটে পরলো। আমি তাড়াহুড়া করে, আমার নুনুটাকে, লুকানোর চেষ্টা করলাম প্যান্টের ভেতরে।

সারাটা দিন ক্লাশে এক ধরনের লজ্জাতেই কাটলো। শেষ পিরিয়ডে আমার কাঁটা ঘায়ে নুন ছিটানোর জন্যেই বোধ হয়, সিলভী একটা ভাজ করা চিরকুট আমার বেঞ্চের উপর ছুড়ে ফেললো। আমি চিরকুটটা খোলে পড়লাম। সিলভী লিখেছে, তুমি তো ইচ্ছে করেই নুনুটা বেড় করে রেখেছিলে, তাই না? তোমার ঐ নুনুটার কি শাস্তি আমি দিই, তুমি খালি অপেক্ষা করো!

আমার কি মাথা খারাপ নাকি? ক্লাশে নুনু বেড় করে বসে থাকবো! আমি জাংগিয়া পরিনা, বোতামের প্যান্ট! নুনু দাঁড়িয়ে থাকলে, বেড়িয়ে পরাটা তো কোন অস্বাভাবিক কথা না! লজ্জায়, অভিমানে আমি আর কোন উত্তর করলাম না। এমন কি সিলভীর দিকে পুনরায় তাঁকানোরও চেষ্টা করলাম না।

পরবর্তী ছুটির দিনের কথা। কেয়া আপা নিজ বাড়ীতেই যাবার কথা ছিলো সেদিন। তাই সকালের নাস্তা শেষ হবার পরপরই আমার জন্যে দুপুরের খাবারটা রেডী করে বললো, এখানে দুপুরের খাবার রেডী আছে। ঠিক সময় মতোই খেয়ে নেবে। আমি সন্ধ্যার আগেই ফিরে আসবো। তারপর রাতের খাবার রেডী করবো।

সেদিন আসলে ক্রিকেট খেলার ম্যাচ যেমনি ছিলো না, তেমনি বাইরে গিয়ে যে কারো সাথে আড্ডা মারবো, তেমন কোন বন্ধুও ছিলো না। অথবা, বাইরে থেকে যে আমাদের বাসায় কেউ আসবে, তার জন্যেও প্রস্তুত ছিলাম না। আমি সাধারন ঘুমানোর সময় যে পোষাক পরি, সেই স্যান্ডো গেঞ্জি আর ট্রাউজারেই সোফায় বসে আপন মনেই একটা সাপ্তাহিক ম্যাগাজিনে চোখ বুলিয়ে নিচ্ছলাম।

সকাল কত হবে? সাড়ে নয়টা? কিংবা দশটা? হঠাৎই কলিংবেলটা বেজে উঠলো। কেয়া আপাই কি আবার ফিরে এলো নাকি? আমি দরজাটা খোলতেই অবাক হয়ে দেখলাম সিলভী! আমি খানিকটা লাজুকতা চোখে সিলভীর দিকে তাঁকালাম। কেনো যেনো সিলভীর সাথে কথা বলতে ভয় ভয়ই করলো। আসলে সিলভীর সাথে জীবনে কখনো কথা বলা হয়নি। ঐ দিন ক্লাশে খাতায় লিখালিখি করেই প্রথম কথা চালানো হয়েছিলো। আমি জানি, এই বাড়ীতে সিলভী আসে, কেয়া আপার কাছেই। আমি ভয়ে ভয়েই বললাম, কেয়া আপা তো বাসায় নেই!

সিলভী খুব সহজ ভাবেই বললো, ওহ, তাহলে তো আরো ভালো!

এই বলে সিলভী, আমাদের বসার ঘরের দরজার লকটা বন্ধ করে দিলো। তারপর, আমার দিকে খুব তীক্ষ্ম চোখেই তাঁকিয়ে রইলো কিছুক্ষণ! আমি সিলভীর মনোভাব কিছুই বুঝলাম না! সিলভী হঠাৎই তার কাঁধে ঝুলানো হ্যান্ড ব্যাগটার ভেতর থেকে একটা কাপর কাটার কেচি বেড় করে নিলো। তারপর খুব গম্ভীর হয়েই বললো, ঐদিন লুকিয়ে লুকিয়ে আমার ন্যাংটু দেহটা দেখা হয়েছিলো, তাই না? আবার ক্লাশে আমাকে নুনুও দেখানো হয়েছিলো, তাই না? তোমার ঐ নুনু টা আমি এখন কেমন করে ক্যাচ ক্যাচ করে কাটি, সেটাই শুধু দেখো আজকে!

বলে কি এই মেয়ে? আমার অত সাধের নুনুটা ক্যাচ ক্যাচ করে কেটে নেবে? এই এক সপ্তাহ আগেও তো, কেয়া আপা আমার এই নুনুটাকে মুঠি করে ধরে, কত মধুর স্বপ্ন দেখেছে! আমার নুনুটা আরেকটু বড় হলে, হংস মিথুনের খেলাতেই হারিয়ে যাবে। আর সিলভী কিনা বলছে, সেটা আজই কেটে নেবে! তাহলে কেয়া আপার সাথে হংস মিথুনের খেলাটা খেলবো কি করে? আমি ভয়ে পালানোরই চেষ্টা করলাম।

পালাবো কোথায়? যেদিকেই যাই সেদিকেই সিলভীর বাঁধা, আর ধারালো কেচিটার ক্যাচ ক্যাচ শব্দ! বাথরুমের দিকে পালাতে যেতেও দরজার সামনে সিলভী! রান্নাঘরে পালাতে যেতেও দরজার সামনে সিলভী! বাবার ঘরে ঢুকতে যেতেও সিলভী, কেয়া আপার ঘরে ঢুকার সময়ও চোখের সামনে সিলভী। এক সুযোগে নিজের ঘরে গিয়ে দরজাটা বন্ধ করে দেবো বলে ভেবেছিলাম, কিন্তু সিলভীর গায়ের শক্তির সাথে পেরে উঠলাম না।

আমি খুব অসহায়ের মতোই আমার বিছানার দিকেই পালানোর চেষ্টা করলাম। অথচ, সিলভী কঠিন চোখেই বললো, পালাবে কোথায় হারাধন! পালানোর আর পথ নেই!

এই বলে সিলভী আমার ঘরের দরজার লকটাও বন্ধ করে দিলো। আমি কি করবো, বুঝতে পারলাম না! বাঁচাও, বাঁচাও, বলে চিৎকার করবো নাকি? নাহ, তাতে করে তো আরো লজ্জাই বাড়বে! পাড়া প্রতিবেশী জানাজনি হয়ে, কি বিশ্রী অবস্থাটাই না ঘটবে! নুনু কাটুক, তারপরও, পাড়া প্রতিবেশীকে জানানো যাবে না! কিন্তু, তাই বলে আমার নুনু কেটে নেবে, আর আমি কিছুই করবো না! আমি চিৎকার করতে চাইলাম, বাঁ!

সিলভী আমার মুখটা চেপে ধরে থামিয়ে, ধাক্কা দিয়ে বিছানার উপর ফেলে দিলো। তারপর বললো, চিৎকার করবে তো, শুধু নুনু নয়, ঠোট দুটোও কেটে দেবো! তখন মানুষ শুধু নুনু কাটা অনিই বলবে না, বলবে ঠোট কাটা অনি!

বিছানার উপর গড়িয়ে পরে, আমি খানিকটা সাহস সঞ্চার করেই বললাম, সিলভী, আমাকে ক্ষমা করো! আমি আর কক্ষনো লুকিয়ে লুকিয়ে কারো ঘরে চুপি দেবো না! আর স্কুলে নুনু বেড় হয়ে যাবার ব্যাপারটা আসলেই একটা এক্সিডেন্ট!

কে কার কথা শুনে! সিলভী বললো, আর একটা কথা বলবে তো, মুখের ভেতর এই কেচিটা ঢুকিয়ে দেবো! আমাকে এখন শান্তি মতো তোমার নুনুটা কাটতে দাও!

বলে কি এই মেয়ে? আমার নুনু কাটবে, তাও আবার শান্তি মতো? ভয়ে আমার মুখ থেকে শব্দও বেড় হতে চাইলো না। মাই গড্! সিলভী আমার দু উরুর উপর চেপে বসেছে! আমি জানি, আমার মনে যতই ভয় থাকুক না কেনো, বেহায়া নুনু টা ট্রাউজারের নীচে ঠিক ঠিক দাঁড়িয়ে আছে বোকার মতোই, সিলভীর মুখে নুনু কাটার কথাটা শুনেও! সিলভী হঠাৎই আমার কোমরের দিক থেকে ট্রাউজার টা টেনে নামিয়ে, আমার নিম্নাঙ্গ, আর তথাকথিত নুনুটা বেড় করে নিলো। তারপর হঠাৎই আমার সটান দাঁড়িয়ে থাকা নুনুটা মুঠি করে নিয়ে বললো, এখন কেটে দিই এটা!

সিলভীর মনে কি খানিকটা দয়া নেমে এসেছে নাকি? এতক্ষণ তো বলেছে, আমার নুনুটা কেটেই নেবে! এখন তো আমার কাছেই জানতে চাইছে, কেটে নেবে কিনা? আমি অনুযোগ করেই বললাম, আমার দশটা নয়, পাঁচটা নয়, একটা মাত্র নুনু! ঐ নুনু টা কেটে নিলে, আমি আর নুনু পাবো কই?

সিলভী আমার নুনুটা মুঠিতে ধরে রেখেই, মুচরে মুচরেই বললো, তা আমি কি করে বলবো? আমার নগ্ন দেহ দেখার সময় সেটা খেয়াল ছিলো না? ক্লাশে সবার সামনে আমাকে নুনু দেখানোর সময় খেয়াল ছিলো না?

আমি এক কথায় বললাম, স্যরি!

সিলভী আমার নুনুটা শক্ত করেই মুঠি ধরে, একটা খ্যাচকা টান দিয়েই বললো, স্যরি বললেই কি সব অপরাধ মাফ হয়ে যায় নাকি?

আমি ভয়ে ভয়ে বললাম, আমি বললাম তো, আর কক্ষনো এমন হবে না!

আমার তেরো চৌদ্দ বছর বয়সের নুনুটার আর কত ক্ষমতা বুঝলাম না। সিলভীর শক্ত হাতের মুঠোতে থেকে কেমন যেনো ছটফট করছিলো! আমার দেহে শিহরণের পরিবর্তে দম বন্ধ হয়ে ভিন্ন এক ধরনের মৃত্যুর প্রহরই শুধু গুনছিলো। আমি বুঝলাম না, হঠাৎই আমার নুনুটার ভেতর থেকে এক ধরনের তরল বেড়িয়ে এসে, মুঠি করে রাখা সিলভীর হাতটাকে ভিজিয়ে দিতে থাকলো। সিলভী হঠাৎই কঁকিয়ে উঠে আমার নুনুটা তার মুঠি থেকে মুক্ত করে দিয়ে বললো, এসব কি?

আমার তখন দম যায় যায় অবস্থা। আমার এই অবস্থা দেখে উল্টো সিলভীই বুঝি ভয় পেয়ে গিয়েছিলো! সে তার হাতটা ধুয়ে এসে, আমার মাথায় হাত বুলিয়ে বলতে থাকলো, অনি, তোমার কিছু হয়নি তো? আমি তো এমনি দুষ্টুমি করতে চাইছিলাম!

আমার তখন বলার মতো কোন ভাষা ছিলো না।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *