বাংলা নববর্ষের দিন। চারিদিকে সাজসাজ রব। গানে আর পান্তা ভাতে একাকার অবস্থা। মেডিকেলের আউটডোর গেটের সামনে রিকসা থেকে নামল কেয়া। দিনটা কাপলদের জন্য বিশেষ। এমনিতে কিছু না, কিন্তু আজকে কেয়ার জন্য গেটের সামনে অপেক্ষা করছিল পলাশ। ওরা দুজন একসাথে এই সিলেট মেডিকেলের থার্ড ইয়ারে পড়ে। কেয়া আজকে শাড়ী পরে এসেছে।

কেয়া-পলাশের সম্পর্ক তিন বছর হতে চলল। এরমধ্যে আর একটি পহেলা বৈশাখ এসেছে। পলাশ সেদিন দিনাজপুরে ছিল। সে দিনাজপুরের ছেলে। ছুটি পেলে দেশে যায়। এবার যায়নি শুধু কেয়ার সাথে নববর্ষের দিনে একটু ঘুরবে ফিরবে বলে। প্রেমিকাকে শাড়ী পরে দেখার তো এই একটাই দিন। কেয়া এই সিলেটেরই মেয়ে। সে বাসায় থেকে পড়াশুনা করে। একারনেই হয়তো পলাশের সাথে সম্পর্কের বাড়াবাড়িতে ওর যাওয়া হয়নি। কেয়া বেশ সুন্দরী আর শান্ত স্বভাবের মেয়ে। কিছুটা নিজেকে নিয়ে থাকতে ভালবাসে। পলাশের সাথে ওর সম্পর্ক মূলত ওদের বন্ধুত্বকে ঘিরে। ফার্স্টিয়ারে ভর্তি হয়ে হয়েই সিনিয়র ভাইদের প্রপোসাল সে পাত্তা দেয়নি। অথচ, গ্রুপ স্টাডি, নোটস আদান, এসব করতে করতে পলাশের সাথে ওর বেশ একটা সম্পর্ক তৈরি হয়ে গেল। পলাশ ফ্রেন্ডদের সামনে ডিক্লেয়ার করে বসল- ‘প্রেম হয়ে গেছে’। কেয়া সেদিন ফিরিয়ে দিতে পারলনা।

pic_19_big

সারাদিন ঘোরাঘুরি, বন্ধুদের নিয়ে আড্ডা, রেস্টুরেন্টে খাওয়া, এসব করে দিনটা ভালই যাচ্ছে। এসব ক্ষেত্রে সাধারণত যা হয়, কাপলরা আলাদা দল হয়ে যায়। ভাবখানা এমন যেন কয়েকটা সত্যিকারের ফ্যামিলি একসাথে ঘুরতে বের হয়েছে। পলাশের সাথে যেমন কেয়া, তেমন বিপুলের সাথে সুমি আর সাগরের সাথে দিনা। এই তিন কাপল মিলে সারাদিন টোঁ-টোঁ করে ঘুরল। সন্ধ্যার পরে কনসার্ট আছে সেই অপেক্ষা। এবার দলছুট আসবে। গতবার ছিল সোলস। বিকাল হতে হতে মুটামুটি টায়ার্ড হয়ে গেল সবাই। কেয়া বাদে বাকিরা হস্টেলে থাকে। বিকালের দিকে সবাই ফ্রেস হতে যে যার রুমে গেল। কথা হলো আটটার দিকে অডিটোরিয়ামের বারান্দায় সবাই আবার মিলিত হবে। কেয়া চলল সুমির সাথে।

হাতমুখ ধুয়ে পলাশ সোজা হয়ে বিছানায় শুয়ে পড়ল। গভীর রাত পর্যন্ত কনসার্ট চলবে। কাজেই এনার্জি জোগাড় করা দরকার। ঘন্টা খানেক ঘুমাতে পারলে আরো ভাল। পলাশ চোখ বন্ধ করল।

চোখ বন্ধ করতেই সারাদিনের ঘটনা গুলো তার চোখের পর্দায় কেমন ভেসে উঠল। কেয়াকে সত্যিই অদ্ভুত দেখাচ্ছিল আজকে। অথচ কথাটা বলার সুযোগই পাওয়া গেলনা। বন্ধু-বান্ধব নিয়ে ঘুরে বেড়ানোর এইটাই একটা সমস্যা। কথা গুলো পার্সোনাল ভাবে বলার সুযোগ পাওয়া যায়না। শাড়ি পরে ওকে এত রমনীয় দেখায়, সেটা পলাশের জানা ছিলনা। হয়তো সব মেয়েকেই এমন লাগে, কিন্তু কেয়াকে দেখা আর অন্য দশটা মেয়ে দেখা তো আর এক জিনিস না! মাথায় রজনীগন্ধার একটা মালা দিয়েছিল কেয়া। ঘামের সাথে ফুলের গন্ধ মিলিয়ে এক মোহনীয় সুবাস। ভোলার মতো নয়।

একান্ত গোপনে পলাশ আর একটি কথা ভাবার লোভ সামলাতে পারলনা। কেয়ার পেটের দিকে বার বার চোখ চলে যাচ্ছিল ওর। কেয়া কি এটা বুঝতে পেরেছে। পারলে একটা বিশ্রী ব্যাপার হবে। পাশ থেকে যতবার ওই পেটের দিকে ওর দৃষ্টি পড়েছে, ততোবার পলাশ একধরণের দুর্বলতা অনুভব করেছে। একটা উত্তেজনাও যে ছিল সেটাও অস্বীকার করা যায়নে। এটা যে যৌন উত্তেজনা সেটা পলাশ জানে কিন্তু ভাবতে চায়না। কেয়াকে নিয়ে যৌন চিন্তা তার পছন্দ নয়।

কেয়া যদি পলাশের মনের কথা জানত তাহলে হয়তো নববর্ষের দিনটা ওদের জন্য আরও রোমাঞ্চকর হতো। না তাকিয়ে কেয়া বলে দিতে পারে ঠিক কতো বার কখন কখন ওর কোন কোন যায়গায় পলাশের চোখ পড়েছে। শিহরণের কথা ও পলাশকে বলতে পারেনি। বিপুল মাঝেমধ্যেই সুমির কোমরটা জড়িয়ে ধরছিল, তাও একেবারে আঁচলের নিচ দিয়ে। ওরা যে আরও ক্লোজ, সেটা কেয়া জানে। সেও পলাশের সাথে আর একটু ক্লোজ হতে চায়। যাকে নিয়ে বিয়ের স্বপ্ন, তার সাথে একান্তে বসে কেয়া আরও শিহরিত হতে চায়। রক্ষনশীল মন এতে তেমন দোষ দেখেনা।

২………

হইচই করে কনসার্ট শুরু হয়েছে। রাত সাড়ে দশটা বেজেছে। এরমদ্ধে গান হয়েছে মাত্র একটা। কনসার্ট শুরু হতে যে দেরি হবে সেটা জানা কথা। কেয়া বাসায় বলে এসেছে আজকে সে সুমির সাথে থাকবে। শো শেষ হতে হতে তো রাত দুইটা হবেই। এতো রাতে বাসায় ফেরা যায়না।

রাত তখন প্রায় সোয়া এগারো। তিনটার মতো গান হয়েছে মাত্র। কেয়া কাছাকাছি একটা সাউন্ড বক্স ছিল। তার ধাক্কা সে আর বেশিক্ষন সহ্য করতে পারলনা। কানে তালা লেগেছে। বাইরে আসার জন্য পলাশকে সে খোঁচাতে লাগল।

বাইরে এসেও গান শোনা যাচ্ছে সবই। মিনিট কয়েক টেনিস কোর্টের দিকটায় হাটাহাটি করে তারপর ফিরে গেলে ভালই হবে। ওইদিকটায় কাপলরা এমনি বসেটসে। হাটাহাটি বাদ দিয়ে ওরাও একটা বক্সের কাছে বসে পড়ল। মনে হয় এটা টেলিফোনের বক্স। সেটা যাই হোক এখানে হেলান দিয়ে দিব্যি বসে থাকা যায়। ওদের মতো আরও দুই-চারটা কাপলকে বসে থাকতে দেখা যাচ্ছে। মানুষ যখন কনসার্টেও ফাঁকি দেয়, তখন কোন কারণ থাকে। ওই কাপলদের বেলাতেও কারণ আছে। গভীর রাতের এই আলো অন্ধকারেও বেশ বুঝা যাচ্ছে যে ওরা এমনি এমনি বসে নাই। ঠোঁটে ঠোঁট ডুবিয়ে দিয়ে সবাই গভীর খেলায় মেতে আছে। একজনের ঠোঁট মেয়েটার গলায়। কেয়ার পা দুইটা শিরশির করে উঠল।

পলাশ আস্তে করে শুধু বলল,- তোমাকে আজকে অন্য রকম দেখাচ্ছে।

খুব খারাপ?

না, অদ্ভুত সুন্দর। আমার বউ মনে হচ্ছে একদম। আদরের বউ।

বউ কথাটায় যে এত শিহরন, কেয়া সেটা জানতনা। ওর কেমন দুর্বল লাগতে লাগল। যোনীপথের দেয়ালটা ভিজে উঠল সংগোপনে। সে পলাশের হাতে হাত রাখল। পলাশও জড়িয়ে ধরল কেয়াকে। কেয়ার ঠোঁটে ঠোঁট চেপে ধরতে পলাশের সময় লাগলনা। আজকে চুমু হবে আর সেটা অন্য রকম হবে, এটা যেন দুজনই জানত। গভীর রাতে শয়তান ভর করে। ওদের প্লেটনিক প্রেমে আজকে ফ্রয়েড সাহেব ভর করতে চলল। অন্ধকারের চাদরে লুকিয়ে পলাশ অবিরাম ভাবে কেয়াকে চুমু দিয়ে চলল। এতো কাছে সে কেয়াকে আগে পায়নি। আর প্রেমের আহ্বানে কেয়াও কেমন অসহায় হয়ে পড়ল। পলাশ ধীরে ধীরে ওর ঠোঁট থেকে গলায় নেমে এলো। নাভীর চারদিকে পলাশে সরু আংগুলের খেলায় কেয়ার স্তনের বোঁটাগুলো যেন গোলাপের কাঁটার মতো শক্ত হয়ে উঠেছে। খুব সাবধানে কেয়া ওফ… করে উঠল।

কেয়ার নিজেকে ধরে রাখতে পারছেনা। শক্ত বোঁটাটা কেউ যদি চেপে ধরত তাহলে হয়তো ভালো লাগতো। তার এই আগুন নিভতে খুব সময় লাগলনা। ব্লাউজের উপর দিয়ে দুই বুকের মাঝখানে ও পলাশের নিঃশ্বাস শুনতে পেল। পলাশ কখন বুকের ওপর থেকে আঁচল সরিয়ে ফেলেছে, কেয়া সেটা বুঝে ওঠার সময় পায়নি। সময় যাচ্ছে-পলাশের আদর আরও বন্য হয়ে উঠছে। কেয়ার ভয় হচ্ছে, শিহরণ হচ্ছে। পলাশের বন্যতা তাকেও বন্য করে তুলছে। কেয়া না করতে পারছেনা। দিনের আলো মানুষকে সভ্যতার মুখোশে আড়াল করে রাখে। রাত সেটা সরিয়ে নেয়।

ব্লাউজের হুঁক গুলো সামনে। পলাশ টুক টুক করে তিনটা হুঁকই আলগা করে দিল। চুমু দিল সবচেয়ে উপরে হুঁকের জায়গায়। চিবুক দিয়ে ঘষে ঘষে থেকে কাপড়ের টুকরোগুলো সরিয়ে দিল। নেমে আসল আরো নিচে। তারপর আরো। কেয়া সাপের মতো হিশ হিশ করে উঠল। বললো-এতো ভেতরে কেন? কেয়াকে কামনা দিয়ে জয় করার যে ছবি গুলো পলাশের মনে এতোদিন ছিল, একধাপ একধাপ করে সেসব সত্যি হয়ে উঠছে। ব্লাউজ সরিয়ে ব্রা দিয়ে ঢাকা প্রায় উন্মুক্ত দুই বুকের মাঝে পলাশ হালকা হালকা করে কামড় দিয়ে যাচ্ছে। কেয়ার চোখ আধবোঁজা। ও পলাশের চুল খামচে ধরে আছে। তাতে প্রশ্রয়ের বাধা।

কেয়ার বুকে পলাশ কতক্ষন তার ঠোঁট ঘষেছিল সেটা বলা মুশকিল। হতে পারে মিনিট কিংবা ঘন্টা। এক ধরণের পাশবিকতা ওকে পেয়ে বসেছে এখন। পলাশেরও তাই। উন্মত্তের মতো বাম হাত দিয়ে কেয়াকে ধরে অন্য হাতে দিয়ে ডান বুকটা পিষে চলেছে ক্রমাগত। কেয়ার বাম বুকটা লেপ্টে আছে তার শরীরে। হঠাত আউ… করে শব্দ করে উঠল কেয়া। পলাশ ওর ডান বুকটা খামচে ধরে মুচড়ে দিয়েছে খুব জোরে। থামল পলাশ। উত্তেজনায় তখন হাপাচ্ছে দুজন। পলাশের দিকে তাকাতে কেয়ার কেমন লজ্জা করছে। স্পর্শের গভীর উন্মাদনা নিয়ে সে পলাশের চোখে তাকাতে পারবেনা। জড়িয়ে ধরে পলাশের বুকে মাথা লুকালো কেয়া। ফিসফিস করে বললো,

-আরও আস্তে করে আদর করতে হয়। ব্যাথা পাই তো।

পলাশ জানল সে কোন ভুল করেনি।

কেয়ার পিঠ ঘামে ভিজে উঠেছে। ব্লাউজটা ঘামে ভেজা। ভেজা পিঠে সুড়সুড়ি দিয়ে যাচ্ছে পলাশ। তাতে আরও কাতর হয়ে উঠছে কেয়া। কেয়াকে কাছে টেনে ওর গলার ভাঁজে ঠোঁট ছোঁয়ালো পলাশ। কেয়া এবার একটু বাধা দিতে চাইল। বললো,

-চলো ফিরে যাই। সবাই আমাদের খুঁজবে।

মনে হয় ফিরে যাওয়াই উচিত। আশেপাশের জুটিরা যে যার মতো হাওয়া। গভীর রাত। মনে হচ্ছে এর মদ্ধ্যে অনেকটা সময় পার হয়ে গেছে। এতো রাতে ক্যাম্পাসের বাইরের রাস্তায় গাড়িঘোড়া কিছু নেই। মঞ্জুর চায়ের দোকানটা খোলা। গেটের আশেপাশে কয়েকটা ওষুধের দোকানও খোলা আছে। ওগুলো চব্বিশ ঘন্টাই খোলা থাকে। সেই আলো অবশ্য এতো রাতে এই পর্যন্ত আসছেনা। অন্যদিন জায়গাটা যতো নিস্তব্ধ থাকে, আজকে তেমন না। গান ভেসে আসছে, ‘আজ তোমার মন খারাপ মেয়ে …………।’
এই গানে একটা ডিলিউশন আছে। সবসময় মনে হয় বুঝি সত্যি। পলাশের তাই হচ্ছে। কেয়া চুপচাপ।

কেয়া উঠে যাবে। কিন্তু পলাশ হাত টেনে ওকে আবার বসিয়ে দিল। এই নির্জনতা ছেড়ে উঠে যেতে ইচ্ছা করছেনা। কেয়ার কোলে মাথা রেখে শুয়ে পড়ল পলাশ। ফিসফাস গল্পের ফাঁকে ওর মাথাটা বুকে জড়িয়ে ধরল কেয়া। পলাশও মাথা দিয়ে কেয়ার বুকটা চেপ্টে ধরে রাখল অনেকটা সময়। ব্লাউজের হুঁক গুলো তখনও লাগানো হয়নি। ব্লাউজের নিচে হাত দিয়ে এবার একটানে ব্রার হুঁকটাও খুলে ফেললো সে।

মহান এরিস্টেটল বলেছেন যে খাওয়া আর যৌনতা কাউকে নাকি শিখিয়ে দিতে হয়না। পলাশকেও হচ্ছেনা। এই লাইনে সম্পূর্ণ নতুন সে। তবুও একটার পর একটা ধাপ সে পার হয়ে যাচ্ছে সুনিপুণ ভাবে।

ব্রা আলগা করায় বুকদুটো বের হয়ে আসল। শাড়ির আঁচল দিয়ে সেটা ঢেকে রেখেছে কেয়া। আঁচলের নিচে পলাশের মুখ। প্রেমিকের গরম নিঃশ্বাসে শক্ত হয়ে উঠেছে প্রেমিকার স্তনের বোঁটা। জীব ছোঁয়ালো পলাশ। কেয়ার বুকের মাপ ওর জানা নাই। উন্মুক্ত-উত্তেজিত বুক জোড়া দেখে মনে হলো সেটা জানার আর প্রয়োজন নাই। ছোট্ট বৃত্তের মাঝখানে শক্ত হয়ে ফুটে আছে গাঢ় বাদামী রংএর বোঁটা। অন্ধকারে তাকে কালো মনে হচ্ছে। পলাশ তার সর্বশক্তি দিয়ে সেটা চুশতে শুরু করল।

তীব্র অনুভূতি কেয়া সহ্য করতে পারলনা। বোঁটার আগায় ইলেক্ট্রিক শকের মতো লাগে। কিন্তু সরিয়ে দেওয়ার বদলে পলাশের মাথাটা আরও চেপে ধরতে ইচ্ছা করছে। অসহ্য সুখে সে এদিক ওদিক করছে। নিজের হাত দিয়ে বুক চিপে ধরে পলাশের মুখে আরও গুঁজে দিচ্ছে তার খয়েরি বোঁটা। বুকের আঁচল কখন খসে পড়েছে কেউই বুঝেনি। চোখ মেলতেই থমকে গেল পলাশ। এই অন্ধকারেও ফর্সা বুক কেমন ধবধব করছে। খোলা আকাশের নিচে নিজের লজ্জা কখনও মেলে ধরেনি কেয়া। পলাশকে জড়িয়ে ধরল সে। এবার যেতে হবে। পলাশের দিকে পেছন করে কেয়া ওর শাড়িটা ঠিক করে নিচ্ছে।

একটা মেয়েলি কাতর কন্ঠ শোনা যাচ্ছে কি? এই টেনিস কোর্ট, যেখানে ওরা বসে আছে, তার সীমানার বাইরে বেশ কয়েক গজ দূরে পানির পাম্পের ঢপ। একটু অন্ধকার স্যাঁতস্যাঁতে ধরনেরর জায়গা। শ্যাওলা আর ফার্ন গাছে ভরা। পাম্পের সুইচ অন-অফ ছাড়া কেউ সেখানে যায়না। ওই ঝোপ-জংগলের ভিতর সাপের ভ্য় তো আছেই। প্রেমে মানুষ অন্ধ হতে পারে কিন্তু তাতে সাপের ভ্য় যায়না। আওয়াজ এসেছে ওইদিক থেকেই। এই রাতে তো ওই দিকে কারও থাকার কথা না! কেয়ার হাত ধরে পলাশ একটু এগিয়ে গেল সেদিকে। ব্যাপারটা কি জানতে কৌতুহল হচ্ছে। কাছাকাছি গিয়ে পলাশ ঘটনা আঁচ করতে ফেলল। একটা বিব্রতকর অবস্থা। মেয়েটার পরণে বৈশাখী সাজ। ছেলেটার গায়ে পাঞ্জাবি। এই কলেজেরই কেউ হবে- নাহলে এই জায়গা চেনার কথা না। শাড়িটা কোমর পর্যন্ত তোলা। ওদিকে পাঞ্জাবির নিচে কিছু নাই, কালো কালো পা দেখা যাচ্ছে। মেয়েটাকে মাটিতে পেড়ে ফেলে সে সমান তালে সেক্স করে যাচ্ছে। মেয়েটা সুখে ছটপট করছে নিচে শুয়ে। পা পেঁচিয়ে সে ছেলেটিকে জড়িয়ে ধরে আছে। মাঝে মাঝে নিজেকে সে কন্ট্রোল করতে পারছে না-গোঁঙ্গানির মতো একটা আওয়াজ করছে। মেয়েটা ফ্যাসফ্যাসে গলায় শুধু বলছে, ‘ভেতরে দিওনা জান…এবার ভেতরে দিওনা…প্লিজ…এখন সেইফ না…’।

পলাশ কেয়ার পাছায় একটা চিমটি দিল। ওরা তাহলে একা নয়। কেয়ার প্যান্টিতে রসের ছোপ পড়ল। পলাশের পৌরুষ সে অনুভব করল ওর হাত ধরে।

কনসার্ট আরও ঘন্টাখানেক বাকি ছিল। এই সময়টা কেয়া অডিটোরিয়ামে ছিল ঠিকই কিন্তু একদমই মন বসেনি। পলাশও সাথে নাই। ‘কই ছিলা মামা…’ বলে রুমেল এসে তাকে ধরে নিয়ে গেল। এদিকে সুমিকেও কোথাও খুজে পাওয়া গেলনা। একা একা রুমে ফিরে জামা বদলে হাত মুখ ধুয়ে নিল। সুমি এখনও ফিরেনি। বিছানায় শুয়েশুয়ে আজকে কি হলো এসব ভাবছে, এমন সময় পলাশের ফোন। কেয়া জানত পলাশ ফোন করবেই। এই রাতে পলাশের গলার স্বর আর ভারি নিঃশ্বাস ওর ভেতরে একটা মাদকতা এনে দিল। আর সহ্য করা যায়না। ফোন রেখে আস্তে করে আংগুল ছোঁয়ালো দুই উরুর ফাঁকে। যোনী থেকে আঠালো রস তুলে এনে ক্লাইটোরিসে ঘষতে শুরু করল। মনের পর্দায় ভেসে উঠল নগ্ন বুকে পলাশের বিচরণ, অজানা যুবতীর উপর নাজানা যুবকের আহরণ আর সংগম। যুবকের জায়গাটা কখন যেন পলাশ দখল করে নিল। পলাশের নিচে নিজেকে সমর্পন করল কেয়া। ঘরে কেউ নেই। সবকিছু উজার করে মাস্টারবেট করতে লাগল সে। একসময় পাছার মাংস শক্ত হয়ে আসল। পা দুটো সে চেপে ধরল একে অন্যের সাথে। কুঁচকে গেল বিছানার চাদর। হয়ে আসছে ওর। কোমরের নিচটা কেঁপে কেঁপে উঠছে। পাছার ফুটা কুচকে যাচ্ছে যোনীর দিকে। ধাক্কা লাগল শরীর জুড়ে। অর্গাজম হয়ে গেল কেয়ার।

তরুনীর অন্তরে যে স্বপ্নের পুরুষ বাস করে, যুবতীর স্বপ্নে সে পুরুষ হয়ে ওঠে বলিষ্ঠ আর সক্ষম। তরুনীর পুরুষ স্বপ্নের কথা শোনায়, ভালোবাসার কথা বলে। যুবতীর পুরুষ নিঃশব্দে অভিসারে আসে। তার অভাবে স্বমেহন ছাড়া আর কোন উপায় থাকেনা। এতে দোষের কিছু নাই।