চুষে চুষে কাদা করে দিলাম

কুপের দরজাটা কেউ নক করল, শুয়ে শুয়েই বললাম খোলা আছে ভেতরে আসুন। দেখলাম, টিটি সাহেব এসেছেন উঠে বসলাম, ওনাকে ভেতরে এসে বসতে বললাম, উনি ভেতরে এলেন, আমি ব্যাগ থেকে টিকিটটা বের করে ওনাকে দিলাম, উনি দেখে বললেন, স্যার আপনার কোন অসুবিধা হলে, আমাকে বলবেন। আমি একটু অবাক হলাম, আমাকে স্যার বলে সম্বোধন করাতে, আমি বললাম একটু কফি পাওয়া যাবে। অবশ্যই আমি গিয়ে পাঠিয়ে দিচ্ছি। আর ঐ যে বললাম এনি প্রবলেম আমাকে একটু জানাবেন। আমি পাশেই আছি। ঠিক আছে।
উনি চলে গেলেন, একটু পরেই দেখলাম একজন এসে একটা ট্রে টেবিলের ওপরে রাখল, কফির পট কাপ ডিস দেখে আমার একটু সন্দেহ হল, আমি নিশ্চই কোন সাধারণ ব্যক্তি নই, এদের এ্যারেঞ্জমেন্ট সেই কথাই বলছে, একজন সাধারণ সাংবাদিকের জন্য এরকম ব্যবস্থা। কেমন যেন সন্দেহ হল। মুখে কিছু বললামনা। পকেট থেকে মানিপার্সটা বার করে পয়সা দিতে গেলাম, বলল না স্যার আপনার যখনি যা চাই বলবেন আমরা চলে আসব, একটা বেল দেখিয়ে বলল, এই বেলটা একটু বাজাবেন। আমার সন্দেহটা আরো বারল। এই ঘরটায় আমাকে বোবা হয়েই থাকতে হবে কারুর সঙ্গে কথা বলার জো নেই। কফি খাওয়ার পর বইটা পড়তে পড়তে কখন যে ঘুমিয়ে পরেছি খেয়াল নেই, হঠাৎ দরজায় টোকা মারার শব্দে ঘুমটা ভেঙ্গে গেল। দেখলাম, টিটি ভদ্র লোক মুখটা আমসি করে দাঁড়িয়ে আছে। সরি স্যার ডিসটারব করলাম যদি একটু পারমিসন দেন তাহলে একটা কথা বলবো। আমি একটু অবাক হলাম, বলুন, স্যার আপনার এই কুপে একটা সিট খালি আছে একজন ভদ্রমহিলাকে যদি একটু লিফট দেন ? আমি লিফ্ট দেবার কে, ফাঁকা আছে, আপনি এ্যালট করবেন। না স্যার এই কুপটা আজ শুধু আপনার জন্য, জি এম সাহেবের হুকুম। হ্যাঁ স্যার, এবং আপনার যাতে কোন অসুবিধা না হয়, তার জন্যও আমাদের নি্রদেশ দেওয়া আছে। তাই নাকি। এজিএম মানে সোমনাথ মুখার্জী। হ্যাঁ স্যার। এতোক্ষণে বুঝতে পারলাম, ঠিক আছে আপনি যান, ওনাকে নিয়ে আসুন।
চোখের নিমেষে ভদ্রলোক অদৃশ্য হয়ে গেলেন, কিছুক্ষণ পরে বছর কুড়ির একজন তরুনীকে নিয়ে এসে হাজির। দেখেই আমার চোখ স্থির হয়ে গেলো। গায়ের রং পাকা গমের মতো, পানপাতার মতো লম্বাটে মুখ ঠোঁটের ঠিক ওপরে একটা বাদামী রং-এর তিল। পিঠময় মেঘের মতো ঘন কালো চুল মাঝে কিছুটা হাইলাইট করা। চোখে রিমলেস চসমা। উদ্ধত বুক। পরনে থ্রিকোর্টার জিনসের প্যান্ট এবং টাইট একটা হাতাকাটা গেঞ্জি। টিটি ভদ্রলোক আমার পরিচয় ওকে দিতেই আমি হাততুললাম। আমি ঝিমলিকে আপনার সব কথা বলেছি, তাছাড়া সোমনাথবাবুও ওকে সব বলেছে। ঝিমলির বাবা আমাদের ডিভিসনের এজিএম। উনিও আপনাকে খুব ভলকরে চেনেন আপনার লেখার খুব ভক্ত। মোবাইলটা বেজে উঠল, পকেট থেকে বার করতেই দেখলাম, বড়সাহেবের ফোন। তুই এখন কোথায় ? কি করে বলবো, একটা কুপের মধ্যে টিকিট কেটেছ, আমি এতটা ভি আইপি হয়ে গেছি নাকি ? সারা রাতের জার্নি তোর মা বলল….. ও। আমরা এখন কোথায় আছি ? টিটি ভদ্রলোকের দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞাসা করলাম। খড়গপুর ছেড়ে এলাম। শোন আমরা এখন খড়গপুর ছেড়ে এলাম। ও। শোন সোমনাথ ফোন করেছিল ওদের এক কলিগের মেয়ে কি পরীক্ষা আছে, তোর স্টেশনেই নামবে, আমাকে রিকোয়েস্ট করেছিল, তোর কুপে পারলে একটু ব্যবস্থা করে দিস, আর তোর বড়মাকে বলার দরকার নেই। হাসলাম। ওরা আমার সামনেই দাঁড়িয়ে আছে। আচ্ছা আচ্ছা, দু একটা ভাল লেকা কাল পরশুর মধ্যে পাঠাস। ঠিক আছে। আমার কথাবার্তা শুনে ওরা বুজে গেচে আমি কার সঙ্গে এতোক্ষণ কথা বলছিলাম। টিটি ভদ্রলোকের দিকে তাকিয়ে বললাম, কটা বাজে। দশটা পনেরো। একটু কিছু খাওয়াতে পারেন। আমার গেস্ট এলেন। ওকে স্যার গেস্ট বলবেন না। ঠিক আছে আমি পাঠিয়ে দিচ্ছি। আর একটু কফি। আচ্ছা স্যার। কিছুক্ষণের মধ্যেই ঝিমলির সঙ্গে ভাল আলাপ জমিয়ে ফেললাম, জানলাম ও আমার ওপর ভাল হোমওয়ার্ক করেই এখানে এসেছে, ও উঠেছে, হাওড়া থেকেই কিন্তু জায়গা না পাবার জন্য পেনটিকারেই ছিল, তারপর খোঁজ খবর নিয়ে যোগাযোগ করে এমনকি অমিতাভদার পারমিসন নিয়ে এখানে স্থানান্তরিত হয়েছে। আমার প্রতি কৃতজ্ঞতায় ওর দুচোখ ভরে গেছে। আমি আসতে আপনার কোন অসুবিধা হবেনাতে। হলে, আপনাকে আসতে দিতাম না। ঝিমলি ভাইজ্যাকে একটা সফটওয়ার কোম্পানিতে ইন্টারভিউ দিতে যাচ্ছে। পরশুদিন ওর ইন্টারভিউ। কথায় কথায় এও জানলাম ওখানে ওর থাকার কোন বন্দবস্তনেই, ওর বাবা ভাইজ্যাকের স্টেশন মাস্টারকে বলে দিয়েছেন ওরাই ওর ব্যবস্থা করে দেবে। খাবার চলে এল, আমরা দুজনে একসঙ্গে খেলাম, খেতে খেতে ওর সঙ্গে অনেক গল্পহল, ওর পড়াশুনর বিষয় আমার লেখার বিষয়ে, আরো কত গল্প, আমার কিন্তু বার বার ওর বুকের দিকে নজর চলে যাচ্ছিল, ও সেটা ভাল রকম বুঝতে পারছিল কিন্তু তার কোন প্রকাশ ওর মুখে চোখে দেখতে পেলাম না। বরং আমার চোখের এই লোভাতুর দৃষ্টি ও বেশ তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করছিল।
খাওয়া শেষ হতেই একজন এসে সব পরিষ্কার করে নিয়ে চলে গেল, আমি ব্যাগ থেকে একটা পাজামা পাঞ্জাবী বার করে বাথরুমে চলে গেলাম, একেবারে ফ্রেস হয়ে চলে এলাম, আমি চলে আসার পর ঝিমলি গেল। ঝিমলি একটা ঢলঢলে গেঞ্জি আর একটা ঢলঢলে বারমুডা পরে এল। ঝিমলিকে দেখে তনুর কথা মনে পরে গেল সঙ্গে সঙ্গে আমার সোনামনি নেচে উঠল, কি আর করা যাবে আজ রাতটা হাতের কাছে সব কিছু পেয়েও শুকনো যাবে। মোবাইল থেকে দুটো ম্যাসেজ করলাম, একটা বড়মাকে আর একটা তানিয়াকে, মোবাইলের শুইচ অফ করলাম। ঝিমলি বলল কি হলো শুয়ে পরবেন নাকি ? হ্যাঁ। তারমানে। আমি একা একা জেগে বসে থাকব নাকি। তাহলে কি করবে। কেন, গল্প করব। সব গল্পতো শেষ হয়ে গেল। বা রে কৈ হল। ঐ হল আর কি। আমি টান টান হয়ে শুয়ে পরলাম। ঝিমলি আমার মুখের দিকে কপট রাগ করে তাকাল, আমি বললাম, দেখ ঝিমলি তুমি না থাকলেও আমি ঘুমোতাম, রাত জাগা আমার অভ্যেস নেই। আপনি না সাংবাদিক। হ্যাঁ, তাতে কি হয়েছে, সারা রাত জেগে কি আমরা সংবাদ লিখি নাকি, কারা লেখে জানিনা তবে আমি লিখি না। ঝিমলির মুখের দিকে তাকালাম, ও চোখের থেকে চশমাটা খুলে সামনের টেবিলের ওপরে রাখল, তানপুরার মতো ভরাট পাছা। তনুর থেকে যথেষ্ট সেক্সী দেখলেই বোঝা যায়। অন্য কেউ হলে এরি মধ্যে ঝিমলিকে পটিয়ে নিয়ে এককাট মেরে দিত, কিন্তু আমার দ্বারা এ সব হয় না। কেউ উপযাচক হয়ে দিলে আমি তা গ্রহণ করি মাত্র। আমি চুপ চাপ ঘুমের ভান করে মরার মতো পরে রইলাম, ঝিমলি একবার দরজা খুলে বাইরে গেল, টিটি ভদ্রলোক সামনই বসেছিলেন তাকে কি যেন বলল, তারপর ভেতরে এসে দরজায় লক করে দিল, নিজের ব্যাগ খুলে একটা চেপ্টা মতন কিযেন বার করল বুঝলাম, ল্যাপটপ, তারপর আমার দিকে পাকরে দরজার দিকে মাথা করে ওর বার্থে শুয়ে ল্যাপটপটা খুলল, আমি মিটিমিটি চোখে ঝিমলির শুয়ে থাকার দিকে তাকিয়ে ছিলাম, ওঃ কি ভরাট পাছা, যদি একবার মারতে পারতাম জীবন ধন্য হয়ে যেত, তারপর নিজেকে বোঝালাম সব জিনিষ তোমার জন্য নয়।
বেশ কিছুক্ষণ একটা গেম খেলার পর ঝিমলি উঠে বসল আমার মুখের কাছে মুখটা নামিয়ে নিয়ে এল আমি ওর গরম নিঃশ্বাসের স্পর্শ পেলাম ভীষণ ইচ্ছে করছিল ওর মাথাটা ধরে ঠোঁটে ঠোঁট ঠেকাই পারলাম না। নিজেকে পুরুষ বলে পরিচয় দিতে সেই মুহূর্তে আমার ভীষণ খারাপ লাগছিল, ঝিমলি সোজাহয়ে দাঁরিয়ে লাইটটা অফ করে দিল, কুপের ভেতর হাল্কা সবুজ কালারের ছোট লাইটটা জলছে , ঝমলি নিজের গেঞ্জিটা খুলে ফেলল, আমি অবাক হয়ে ওরবুকের আপেলবাগানের দিকে তাকিয়ে রইলাম। ঝিমলিতো ব্রা পরে নি, তাহলে ! আমার ভুল ভাঙল, না ঝিমলি ব্রাটাই খুলছে, ও ট্রান্সপারেন্ট ব্রা পরেছে। ব্রাটা নীচু হয়ে ওর ব্যাগে ঢোকাল, কালচুলের রাশি ওর পিঠ ময় ছড়িয়ে পরেছে, ওর শরৎকালের মতোফর্সা পিঠে কালচুলের রাশি ছড়িয়ে পরেছে, আমার দিকে ফিরে তাকাল, ওর নিরাভরণ দেহ আমার চোখ পরল ওর নাভি মূলে কি গভীর কি মসৃন, আর কি গভীর, গোল নাভীটা আমায় যেন ডাকছে, অনি ওঠো আর দেরি করোনা সময় নষ্ট করো না, মানুষের জীবনে সুযোগ বার বার আসে না। এই অপসরা তোমার জন্যই আজ সব কিছু সাজিয়ে নিয়ে বসে আছে, আর তুমি ঘুমোচ্ছভূরু কাপুরুষ। ঝিমলি গেঞ্জিটা মাথা গলিয়ে পরল, ওর বগলে এক ফোঁটা চুল নেই কামানো বগলে শঙ্খের মতো দুচারটে ভাঁজ পরেছে। সত্যিই ঝিমলিকে অপসরার মতো লাগছে। ঝিমলি ওর বার্থে বাবু হয়ে বসল, আমার দিকে এরবার তাকাল আমি জেগে আছি কিনা। আর এরবার উঠে এসে আমার মুখের কাছে মুখটা নামিয়ে নিয়ে এল, ওর নিঃশ্বাস এখন আরো ঘন হয়ে পরছে। আমি ইচ্ছে করেই জিভটা বার করে আমার ঠোঁটটা চাটলাম, ঝিমলি ত্রস্তে মুখটা সরিয়ে নিল, আমি একটু নরেচরে একটা বড় নিঃশ্বাস ফেললাম, ঝিমলি ওর সিটে গিয়ে বসলো। আমার দিকে বেশ কিছুক্ষণ তাকিয়ে ও বসে রইল, তারপর আস্তে আস্তে আমার দিকে একপাশ হয়ে শুল, ল্যাপটপটা কাছে টেনে নিল, একবার আমার দিকে তাকাচ্ছে আরএকবার ল্যাপটপের দিকে, বেশ কিছুক্ষণ এইরকম করার পর ও একটা ফাইলে গিয়ে রাইট ক্লিক করে ওপেন উইথ করে একটা ফ্লিম চালাল, ল্যাপটপটা ওর দিকে একটু ঘুরিয়ে নিল, আমি ল্যাপটপের স্ক্রিনটা পুরোটা দেখতে পাচ্ছিনা, তবে কিছুটা দেখতে পাচ্ছি। মনে হল ও যেন একটা ব্লু-ফ্লিম দেখছে, আমি আবঝা আবঝা দেখতে পাচ্ছি, ঝিমলি এবার সিটের ওপর উঠে বসল, আবার ল্যাপটপটা ঘুরিয়ে নিল, হ্যাঁ আমি যা ভেবেছিলাম ঠিক তাই, একটা টিন এজের বিদেশি ব্লু-ফ্লিম, আমি এবার পরিষ্কার দেখতে পাচ্ছি।