প্রতিশোধ Part 1

আখি আমাদের পাশের বিল্ডিং এ থাকতো। প্রায় প্রতিদিন বিকেলে আখি তাদের ছাদে উঠতো। আমিও উঠতাম আমার শখের কোডাক ক্যামেরা নিয়ে। বেশী ছবি তুলতাম না কারন শেষ হয়ে এলেই তো আবার রীল কিনতে হত। যাইহোক, আখি মাঝে মাঝে ইশারা বা কথা বলার চেষ্টা করলেও আমি পাত্তা দেইনি তেমন। কতই বা বয়স ছিলো ওর? ১৩ এর মত। চেহারাও তেমন আহামরি ছিলো না। সেই তুলোনায় আমাদের উপরের তলায় বিজলী ছিলো একটা আইটেম বম্ব। বিজলী ছিলো আমার বয়সী। কিন্তু ১৬ বছরেই বিজলীর ফিগার ছিলো চেয়ে চেয়ে দেখার মত। আমি আমার ধন-মন সব বিজলীর নামে সমর্পন করে বসে ছিলাম। আখি নামের পিচ্চি একটা আনাকর্ষনীয়

মেয়ের দিকে আমার তাকানোটা ছিলো তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যের ভংগিতে সীমাবদ্ধ। সেই আখির সাথে আমার বন্ধুর সেই বছরেই প্রেম হয়ে গেলো। চার বছরের প্রেমের জীবনে অনেক ঝামেলা পেরিয়ে একদিন দুজনে হুট করে পালিয়েও গেলো। প্লাইয়ে গিয়ে তারা কোথায় যেনো কোর্ট ম্যারেজ করে এক মাস বাসার বাইরে থেকেও আসলো। আখির বয়স যদিও বিয়ের সময় ১৭ হয়েছিলো, নয়ন কিভাবে কিভাবে যেনো কিছু জাল সার্টিফিকেট বানিয়ে সেখানে আখির বয়স ১৮ দেখিয়ে দেয়। পালিয়ে যাওয়ার মাসখানেক পর একদিন দুজনকে দেখা যায় নয়নের মা বাবার পা ধরে বসে আছে। নয়নের মা বাবা ছহেলের কথা চিন্তা করে দুজনকেই মেনে নিলেন। নয়ন কিছুদিন পর একটা প্রাইভেট ফার্মে অল্প বেতনে চাকরী নিলো। আর আখি পুরোদস্তুর হাউজওয়াইফ হয়ে গেলো। আজ দশ বছর পর আখিকে দেখে মনে হলো আমি বেশ বড় একটা ভুল করে ফেলেছি আখির প্রস্তাবে সাড়া না দিয়ে। সেই বালিকা আখি তার গুবরে পোকার খোলস ছেড়ে বেড়িয়ে এসে পরিপুর্ন প্রজাপতি হয়ে গিয়েছে। নীল শাড়িস সাথে সাদা ব্লাউজ পড়া আখিকে দেখে আমার বুকের কোথায় যেনো একটু ব্যাথা ব্যাথা করতে লাগলো। আমরা বসে ছিলাম অঞ্জলীদিদির হলরুমের মত বিশাল ড্রয়িংরুমে। আজকে অঞ্জলিদিদি একটা পার্টি থ্রু করেছেন। তার নাকি বেশ বড় একটা শিপমেন্ট আটকে ছিলো চিটাগাং বন্দরে। গত সপ্তাহে সেটা ছাড়া পেয়েছে। এই উপলক্ষে পার্টি। নিশ্চয়ই বিশাল অঙ্কের টাকার ব্যাপার, নাহলে এতো বড় পার্টি দেয়ার কথা না। অঞ্জলিদিদিকে আমি আগে চিনতাম না। নয়নই আমাকে চিনিয়েছে। অঞ্জলিদি নয়নের বস। আমার কোম্পানীর সাথে নয়নদের কোম্পানির একটা ডিল হয়েছিল গত বছর। সেই ডিলের সময় আমি আর নয়ন নিজ নিজ কোম্পানীর রেপ্রেজেন্টেটিভ ছিলাম। তখনই অঞ্জলিদির সাতেহ পরচইয়। আজকের পার্টিতে কল করার আগে অঞ্জলিদির সাথে আমার সব মিলিয়ে তিনবার কথা হয়েছে। আজকের পার্টির কল টা অনেকটা অপ্রত্যাশিত ছিলো। এখানে আসার আগে নয়নের সাথে কনফার্ম হয়ে নিয়েছিলাম। যদি ও আসে তাহলে আমি আসবো। আর না হলে আমি স্কিপ করবো। এমন একটা চিন্তা ছিলো মাথায়। নয়ন কনফার্ম করলো যে ও তার বউ নিয়েই আসবে। তো, আমি আর নয়ন দুজনে দুটো ড্রিঙ্কস নিয়ে বসলাম। আর আমাদের দশফিট দূরে আখি অঞ্জলিদির সাথে হেসে হেসে কথা বলছে। আখিকে আমি যেনো নতুন করে দেখতে লাগলাম। ওকে এর আগে একবার মাত্র দেখেছিলাম বিদেশ থেকে আসার পর। তাও কিছুক্ষনের জন্য নয়নের বাসায়। নয়নের মা ছিলো, আমরা কথা বলছিলাম। এমন সময় আখি এসে সালাম দিয়েছিলো। তখন ও অনেক ঢেকেঢুকে এসেছিলো। আমি চিন্তা করলাম – এই মেয়েটাকে আমি গত ৩/৪ বছর দেখিনি। গত ৩/৪ বছরে কি এমন ঘটলো গেলো যে ও এমন পরিপুর্ন যুবতী হয়ে গেলো! আমি ড্রিঙ্কস হাতে নিয়ে ওর সবকিছুতে চোখ বুলাতে লাগলাম। আখি শাড়ী পড়েছে নাভীর অনেক নীচে। প্রায় ছয় থেকে আট আঙ্গুল নিচে। এটা বোধহয় এখনকার ফ্যাশন। ওর নাভীটা দেখা যাচ্ছিলো না যদিও। সাদা ফুল হাতা ব্লাউজে আখিকে বেশ মানিয়েছে। ওর বুকের কাটাটা কিছুটা বড়। অল্প একটু ক্লিভেজ মাঝে মাঝে উকি দিচ্ছে। গলায় একটা পাথরের নেকলেস পড়া। এক হাতে ব্রেসলেট আরেক হাতে চুড়ি। সবচেয়ে যে ব্যাপারটা আমার কাছে ইরোটিক লেগেছে সেটা হলো আখির বগল ভেজা। – কিরে কি দেখছিস এমন করে? (বন্ধু নয়নের ডাকে সম্বিত ফিরে পেলাম) – তদের অঞ্জিলিদিকে দেখছিলাম। এই বয়সেও কেমন দারুন ফিগার করে রেখেছেন, তাই নারে? (আমি নার্ভাসভাবে গ্লাসে চুমুক দিলাম) – হুম, ঠিকই বলেছিস। অফিসের প্রায় সবাই উনার ব্যাক দেখার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়ে। ফ্রন্ট তো আর ওভাবে দেখা যায়না। উনি সবার চোখের দিকে তাকিয়ে কথা বলেন। (পরের কথাগুলু বলার জন্য নয়ন আমার খুব কাছে সরে আসলো) মাগীর সাথে আমাদের জেনারেল ম্যানেজারের ছেলের একটা সম্পর্কের কথা শুনেছিলাম বেশ কিছুদিন আগে। ব্যাপারটা ধামাচাপা পড়লেও আমি শিউর মাগী অল্প বয়সী ছেলেদের খেতে খুব পছন্দ করে। – কস কী! তাইলেতো মামা তোমার চান্স নেয়া দরকার। (আমি তরল গলায় বললাম) – চান্স নেয়ার জন্যই তো তোদের সাথে ডীল টা করলাম। সত্যি কথা বলতে কি, আমার পজিশন অতো বড় নয় যে অঞ্জলিদির ঘরোয়া পার্টিতে ইনভাইটেশন পাবো। আমার ইমেডিয়েট বস কে বলে কয়ে এই কাজ টা হাতে নিয়েছিলাম। তারপরের টা তো তুই ভালই জানস। থ্যঙ্কস দোস্ত। তুই না থাকলে ডীল টা এতো সহজে করা যাতোনা। (নয়ন আমার কাধ চেপে ধরলো) – আরে ধুর, বাদ দে ব্যাটা। (আমি এড়াতে চাইলাম) – তবে অঞ্জিলিদির চোখে পড়ার জন্য যতটা, তার চেয়ে বেশি এটার প্রয়োজন ছিলো আখির। মাঝে মাঝে ওর সংসার নিয়ে অভিজোগ গুলূ শুনলে মনে হয় – শালার, আমার যদি অনেক টাকা থাকতো, তাহলে এত যন্ত্রণা আর সহ্য করতে হতনা। আমি চুপচাপ ড্রিঙ্কস করতে লাগলাম। আমার মাথায় তখন অন্য চিন্তা কিছুক্ষন পর আখি এসে আমাদের সাথে জয়েন করলো। – কী ভাইয়া, কেমন আছেন? – এইতো, ভালো। তোমার কি অবস্থা? – আপনাদের দোয়ায় আপনার বন্ধু যেমন রেখেছে আর কি। – মানে কি! (নয়ন পাশ থেকে চেচিয়ে উঠলো) তুমি কি বলতে চাইছো আমি তোমাকে খারাপ রেখেছি? – আমি কি তাই বললাম নাকি? (আখির কন্ঠে ডিফেন্ডিং সুর) আমিতো জাস্ট এই ভেবে বললাম যে… – উহু, কথাটা তুমি এই ভাবে বলোনি। (নয়ন জোরে জোরে মাথা নাড়লো। ) তুমি আমাকে খোচা দেয়ার জন্যই বলেছো। আখি আমার দিকে করুন চোখে তাকালো। আমি দেখলাম এভাবে চলতে থাকলে দুজনের মধ্যে ঝগড়া লাগতে দেরী হবেনা। আর এই মুহুর্তে থামানোর দায়িত্বটা আমারই। – এই থামনা! কি শুরু করলিরে বাপ! – না, ও এই কথা বললো ক্যান? (নয়নের ঝাল যেনো মিটছে না) – আরে তুই এতো বোকা কেন? ওকে আজকে সবাই ঘুরে ঘুরে দেখছিলো। এতো সুন্দর ফি… মানে এত সুন্দর এবং হাসিখুশি মেয়েকে যেই দেখছে সেই অবাক হচ্ছে। আর আখি এর ক্রেডিট টা তোকে দিতে চাইলো আর তুই ঝামেলা শুরু করলি। মাঝে মাঝে তোদের ঝগড়া দেখে মনে হয় তোদের দুজনের বিয়েটাই ভুল হয়েছে। (আমি গলা না উচিয়েই নয়নকে ঝাড়লাম।) – আচ্ছা, স্যরি। আমি আসলে বুঝতে পারিনি। (নয়ন কিছুক্ষন চুপ থেকে আমাদের দুজনের উদ্দেশ্য করে বললো। রাতের বেলা হয়তো বউ এর কাছে ভালো মত স্যরি বলবে) আমরা তিনজনেই চুপ মেরে গেলাম এর পর। অবশ্য বেশিক্ষনের জন্য না। কিছুক্ষন পর অঞ্জলিদির পিএস এসে নয়নকে ডেকে নিয়ে গেলো। অঞ্জলিদি নাকি কথা বলবেন। আমাকে একা পেয়ে আখি যেনো একটু খুশিই হলো মনে হলো। আমার বুঝার ভুল ও হতে পারে। আমি আখিকে একটু ওয়েট করতে বলে উঠে আরেকটা ড্রিঙ্কস নিয়ে আসলাম। আখির জন্যও একটা ড্রিঙ্কস নিয়ে আসলাম আমি। – আমিতো ড্রিঙ্কস করি না ভাইয়া। (আখিকে বিব্রত দেখা গেলো) – তাই নাকি? স্যরি, আমি ভেবেছিলাম পার্টিতে আসলে হয়তো একটু আধটু কর। এনিওয়ে, এটায় কিন্তু এলকোহোল তেমন নেই। – সেটা সমস্যা না ভাইয়া, সমস্যা উনি। (আখি চোখের ইশারায় নয়ন কে বুঝালো) – ও আচ্ছা, বুঝলাম। ঠিক আছে তাহলে নেয়ার দরকার নেই। তবে, জিনিসটা কিন্তু আসলে জুস। (আমি পাশে রাখতে রাখতে বললাম) – দেখতে কিন্তু জুস এ লাগছে। খেলে মাথা ঘুরাবে নাতো? (আখি তাকিয়ে আছে ড্রিঙ্কসের দিকে) – আরে নাহ। তোমাকে বলি এখান একি কি আছে। পিচ আচে, পাইনএপল আছে, ক্র্যানবেরি আছে, আর আছে ২ চামুচ ভদকা। এটা মেয়েদের জন্যই। অনেকেই খাচ্ছে তাকিয়ে দেখো। – হুম (আখি আশে পাশে তাকালো।) আচ্ছা দিন। একদিন খেলে কিছু হবেনা। আমি হেসে আখির হাতে ধরিয়ে দিলাম। আখি স্ট্র দিয়ে নেড়ে নেড়ে একটা সিপ নিলো। – বাহ, খেতে তো অনেক মজা! (বলে আখি আরেকটা সিপ নিলো) – হুম, বলেছিলাম না? চলো আমরা ওদিকটায় যাই। আমি আখিকে নিয়ে বারান্দায় বের হলাম। বেশ বড় বারান্দা। সামনে কিছুটা খোলা যায়গা। আমরা দুজন একটু দুরত্ব রেখে দাড়ালাম। – আচ্ছা ভাইয়া, এটার নাম কি? (আখি ওর ড্রিঙ্কসের প্রতি ইঙ্গিত করলো) – সেক্স অন দ্যা বিচ। (আমি সংক্ষেপে বললাম) – ও (আখি চুপ হয়ে গেলো) – এখানে নয়েজ বেশী। চলো বারান্দায় গিয়ে দাড়াই। (আমি আখিকে প্রস্তাব দিলাম)। আখি কিছু না বলে উঠে দাড়ালো। আমরা বারান্দায় এসে কিন্তু প্রথম ধাক্কাতেই ওর শাড়ির আচল আমার চোখে বাড়ি খেলো। আমি শিট বলে আমার মাথা ঝাড়া দিলাম। আখি ‘ওহ স্যরি ভাইয়া’ বলে একটু সরে গেলো। আমি ঘুরে কোনার দিকে চলে যেতে যেতে আখিকে আমার সাথে আসতে ইশারা করলাম। একটু পর বাতাসের বেগ কমে এলো। – বেশী লেগেছে? দেখুন না, এমন বাতাস এলো যে আমি ঠিক সামলাতে পারলাম না। (আখির কন্ঠে দুঃখিত সুর) – আরে নাহ, তেমন লাগেনি। আর শাড়িই তো, তুমিতো আর উড়ে এসে আমার চোখে পড়নি! (আমি তরল গলায় বললাম)। – যাহ, ফাজলামি করবেন না। (আখি লজ্জায় লাল হলো হয়তোবা। আলো কম থাকায় বুঝলাম না।) আসুন ওদিকে যাই, এখানে কেমন যেনো লাগছে। আখি বারান্দার মাঝামাঝি ইশারা করলো। আমি বুঝলাম কেনো ও ওদিকে যেতে বলছে। নয়ন এসে যেনো আমাদের দুজনকে এক সাথে দেখে আবার সন্দেহ না করে। আমি কথা না বাড়িয়ে পা বাড়ালাম। বারান্দার মাঝামাঝি গিয়ে আমরা পাশাপাশি দাড়ালাম। – জানেন, আমার এই প্রথম কোন পার্টিতে আসা। (আখি ওর ককটেল গ্লাসে চুমুক দিলো) – তাই নাকি! (আমি একটু অবাক হলাম) কেনো? নয়ন নিয়ে যেতে চায়না? – আসলে তা না। ওর চাকরিটা ছোট তো, তাই কোথাও ইনভাইট পায়না। (আখি যেনো একটু নিচুস্বরেই কথাটা বললো। হয়তো হাসব্যান্ড ছোট জব করে এটা মুখ দিয়ে বলতে ওর লজ্জা করে) ও অবশ্য আমাকে বলেছে যে আপনার কোম্পানীর সাথে ওদের কোম্পানীর ডিলের ব্যাপারটা। আর সেজন্যই ও এখানে ইনভাইট পেয়েছে। থ্যঙ্কস ভাইয়া। (আখি আমার দিকে তাকালো) – আরে ধুর! (আমি কিঞ্চিত লজ্জা পেলাম) ও তেমন কিছুনা। এটা নয়নের যোগ্যতায় হয়েছে। আমি জাস্ট একটা ব্রীজ ছিলাম। (আমি গ্লাসে চুমুক দিয়ে লজ্জা আড়াল করলাম) – না না ভাইয়া, আমাকে এসব বলে বুঝাতে পারবেন না। এজন্য আমরা ঠিক করেছি আপনাকে একটা ট্রিট দিবো। কোথায় দেবো আপনি ঠিক করবেন। বাসায় না বাইরে? – আরে কি শুরু করলে বলতো? একটা ছোট খাটো ব্যাপার নিয়ে হুলুস্তুল করার স্বভাব তোমাদের কারোরই গেলোনা, না? – উহু, এভাবে পার পাবেন না। বলুন, বাসায় না রেস্তোরা? আপনাকে আজ বলতেই হবে। ও আমার উপর দায়িত্ব দিয়েছে আপনাকে রাজী করানো। আমি দেখলাম আখি আমাকে ছাড়বেনা। আমাকে খাইয়ে ছাড়বে। আমাকে বাধ্য হয়ে বলতে হল যে আমি বাইরে থেকে বাসায় খেতে বেশী স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। আখি যেনো খুশি ই হলো। তারপর আমরা একথা ওকথা বলতে লাগলাম। একতূ পর নয়ন এসে আমাদের সাথে জয়েন করলো আবার। আমাদের ড্রিঙ্কস শেষ হয়ে গিয়েছিলো আগেই। আমি দু’জনকে দাড় করিয়ে আমার আর নয়নের জন্য আরো দুটো ড্রিঙ্কস আনার জন্য ভেতরে পা বাড়ালাম। বলা বাহুল্য, আখি আর ড্রিঙ্কস নেবেনা। দিনকয়েক পর আমি অফিসের কাজে ভীষন ব্যস্ত হয়ে পড়লাম। কফি হাউজের আড্ডাগুলো ও মিস করতে হচ্ছিলো। বন্ধু বান্ধব ফোন দিয়ে ‘হ্যাঁ, এখন তো তোর কাজটাই বড়, আমরাতো কেউ না’ ‘ভাই আপনি একাইতো অফিস করেন, আমরা তো মুড়ি খাই’ জাতীয় কথা বলে খোঁচালো খুব। আমি অনেক চেষ্টা করেও তাদের কে আমার ব্যস্ততা বুঝাতে পারলাম না। বন্ধু বান্ধবরা বুঝি এমনি হয়! আমি নিজেও কয়েকবার দু’একটা বন্ধুকে ফোন দিয়ে এমন বলেছিলাম। আমি তাই রাগ না করে একদিন সময় বের করে আড্ডার মাজারে হাজির হলাম। গিয়ে দেখি সোহেল, জামান, কক-কক আর রিফাত বসা। আমি একটা চেয়ার টেনে বসলাম। – কিরে কি অবস্থা? (আমি একটা চায়ের অর্ডার দিলাম) – এইতো চলতেছে দোস্ত। তেমন কোন আপডেট নাই। (জামান তার চায়ের কাপে চুমুক দিলো) – আছে দোদ-দোদ-দোস্ত। বিব-বিব-বিশাল। এই শালা, কক-কক-কসনা অরে। ( কক-কক রিফাতের মাথায় চাটি মারলো।) কক-কক এর আসল নাম আদাবর। খুবই পুরোনো নাম। কিন্তু সেই নাম টাকে ছোট না করে বা বিকৃত না করে আমরা তাকে কক-কক বলে ডাকি, কারন নামটার একতা ছোট্ট ইতিহাস আছে। কক-কক ওরফে আদাবরের জীবনের প্রথম প্রেমের ফুল ফোঁটে কলেজের সেকেন্ড ইয়ারে পড়ার সময়। মেয়েটা ওদের সাথে স্যারের কাছে একই ব্যাচে পড়তো। নাম ছিলো – কবিতা। আদাবর প্রতিদিন স্যারের কাছ থেকে পরা শেষে আড্ডার মধ্যে এসে কবিতা কিভাবে ওর দিকে তাকিয়েছে, কিভাবে হেসেছে, কিভাবে কলম ধরেছে, কিভাবে মাথার চুল সরিয়েছে – এসব কিছুই বিশদ ব্যাখ্যা করে আমাদের শোনাতো। আদাবর ছোটবেলা থেকে কিঞ্চিত তোতলা। কিঞ্চিত এই কারনে যে ও কিছু কিছু অক্ষর ছাড়া মোটামুটি সব কথাই ঠিক মতো বলতে পারতো। ক, দ, ম, জ এই শব্দ গুলূর মধ্যে পড়ে। যাইহোক, আদাবর যখন গল্প করতো তখন ও কবিতার নাম ধরে ডাকার সময় বলতো – কক-কক-কবিতা। সেই থেকে ওর নামকরন করা হয়েছে কক-কক। যাইহোক, রিফাত চাটি খেয়ে একটু বিরক্ত নিয়ে কক-ককের দিকে তাকালো। ও মোবাইলে কি যেনো করছিলো। তবে আমি শিউর শালা নেট থেকে পর্ন ক্লীপ নামাচ্ছিলো। রিফাতের মোবাইল, হার্ড্ডিস্ক সব ভরা থাকে পর্ন এর কালেকশনে। রিফাত আমার দিকে তাকিয়ে বলে – আরে তেমন কিছু না। কক-কক এর সব কিছুতেই বাড়াবাড়ি। ওই, নয়ন আর তার বউ এর একটু ঝগড়া লাগছে দুইদিন আগে। এটা আর নতুন কি! প্রায় সময়েই তো লাগে। আমি চুপচাপ কাপে চুমুক দিলাম। ঘটনা আসলেও তেমন সিরিয়াস কিছু না। আমি অন্য কিছু ভেবেছিলাম। শুনেছিলাম জামানের গার্লফ্রেন্ড নাকী বাস থেকে পালিয়ে জামানের কাছে চলে আসবে। কারন সেই পুরোনো। দু ফ্যামিলির কেউই মেনে নিচ্ছেনা জামান আর তার গার্লফ্রেন্ড এর প্রেমের ব্যাপারটা। আমি জামানকে অনেক ভাবে বুঝিয়ে বএলছিলাম ভুলেও যেনো পালিয়ে না যায়। ঝামেলা তাহলে আরো বাড়বে। – আরে এইবারের টা সিরিয়াস। নয়ন অবশ্য খুলে কিছু বলেনি। তবে আমার বোন ত আবার আখির বান্ধবী। ওই বললো যে আখি এখন বাপের বাড়ী। আখি নাকি নয়নকে বলে দিয়েছে ও আর নয়নের বাসায় যাবেনা। ( সোহেল বলে উঠলো।) আমি একটু অবাক হলাম। আখি ঝগড়া করে বাপের বাড়ী যাবার মত মেয়ে না। নিশ্চয়ই সিরিয়াস কিছু ঘটেছে। – তারপর? (আমি আরো কিছু শোনার জন্য প্রশ্ন করলাম) – পুরো ব্যাপারটা যেমন জানিনা, তেমনি এ ব্যাপারে কোন আপডেট অ জানিনা আমরা। নয়নকে কে জিজ্ঞেস করেছিলাম, শালা কিছু বলতে চায়না। আমরাও আর নাক গলাই না। সবাই সবার নিজ নিজ ঝামেলা নিয়ে আছি রে ভাই। আমি বুঝতে পারলাম যে এখানে কিছু জানা যাবেনা। আর এই ব্যাপারে নয়নের সাথেই সরাসরি কথা বলতে হবে। প্রইয়োজনে আখির সাথেও। আমি তারপর আরো ঘন্টাখানেক ছিলাম আড্ডায়। কার অফিসে কি ঘটেছে গত ৫/৬ দিনে, তাই শুনে শুনে সময় পার করে দিয়ে বাসায় ফিরলাম। রাতের বেলা বাসায় এসে দু’টো খেয়ে বারান্দায় এসে বসলাম। ভাল লাগছেনা কিছুই কেনো যেনো। আকাশের পুব কোনে কিছু তারা ঝিকমিক করছে। পাশের বিল্ডিং এর কারোনে আকাশটাও ঠিক মত দেখা যায়না। আমার মনে হঠাত ভাবুক বোধ উদয় হলো। আচ্ছা, তারারা কি কথা বলতে পারে! হয়তো পারে। আমরা এখনো অনেক কিছুই জানিনা। জীবনের প্রায় অর্ধেক সময় পেরিয়ে আমাদের বোধশক্তিগুলূ অল্প কিছু জানা ব্যাপারগুলোতেই আটকে থাকে। আর পুরো সময়টা পেরিয়ে সেই জানা গল্পগুলোর সাথে আরো কিছু গল্প আর ঘটনার যোগে আমরা মনে করি অনেক কিছুই জেনে গিয়েছি। যেদিন বাসায় প্রথম কম্পিউটার এলো সেদিন আমি ভেবেছিলাম আর কিছু চাইবার নেই জীবনে। ইন্টারনেট আসার পর আমি ভাবলাম এই যে শেষ হলো চাওয়ার পালা। তারপর একে একে মেসেঞ্জার, হাই-ফাইভ, ফেসবুক কত কিছু এলো জীবনে! আমার চাওয়া তারপরেও কমলোনা। আইপড আর আইফোন নিয়েও এখন আর শান্তি পাইনা। শুধু চাই আর চাই। কিন্তু কোন একটা নতুন জিনিস পাওয়ার পর কিছুদিন চাহিদাগুলো লুকিয়ে থাকে। জিনিসটা পুরোনো হয়ে গেলে আবার নতুন নতুন চাহিদা জেগে উঠে। এসবভ ছাইপাশ ভাবছিলাম বসে বসে। হঠাত মনে হলো নয়নকে একটা ফোন দেয়া দরকার। আমি মোবাইল নিয়ে নয়নের বদলে আখিকে ফোন দিয়ে বসলাম। জানিনা কেনো দিলাম। যখন একবার রিং হওয়ার পর আখির কল ধরলোনা তখন নিজেকে একটু ছোটই লাগলো। আখি কি মনে করলো! এতো রাতে ওকে ফোন দিলাম। হয়তো ঘুমোচ্ছে। সকালে উঠে মিসড কল দেখে আমাকে কি ভাববে! ধ্যুত! আমি নিজের উপর বিরক্ত হলাম। উঠে চলে যাবো এমন সময় পাশের বিল্ডিং এ আমাদের পাশাপাশি ফ্ল্যাটটার রান্নাঘরে আলো জ্বলে উঠলো। আর জানালার সামনে এসে দাড়ালো এক মেয়ে। আমি আস্তে করে দেয়ালের দিকে সরে দাড়ালাম। যেনো আলোর অভাবে আমাকে না দেখা যায়; কিন্তু আমি যেনো দেখতে পাই।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *