Monthly Archives: October 2014

আমি ছোট বেলা থেকেই সেক্স নিয়ে অনেকটা উতসাহি এবং সকল বিষয়ে আমার ব্যপক কৌতুহল। কেমন করে যেন সেক্স বিষয়ে আমার আগ্রহটা তখন থেকেই আমার মনের মাঝে ঢুকে গেছে। আমিও সকল সময় এই চিন্তাতেই থাকি। আমি ঢাকাতে বড় হয়েছি। ৮০ এর দশকে আমার ছেলেবেলা কাটে ঢাকার পূর্ব দিকের একটি এলাকাতে। সেই সময়টাতে ঢাকা অনেকটাই ফাকা ছিল, মানুষজনের এতটা আনাগোনা ছিল না। এমন সময় ছিল, সন্ধার পর রাস্তায় একটি লোক খুজে পাওয়া যেত না। আমাদের বাসার চারপাশেই খুবই ফাকা জায়গা ছিল। আমাদের বাসায় দুইটা বড় ঘর ছিল। একটি ঘরে তিনটা রুম। সেখানে আমি আমার মা,

দোলের দিন সকাল বেলা, রোদে ভেসে যাচ্ছে পুরব দিকের ঘর টা। বর্ণালি কাগজ এর পাতা ওলটাতে ওলটাতে টিকটিকির পড়ে যাওয়ার টক টক শব্দ পেল, চমকে উঠল। ওর মনটা আজ খুব শঙ্কিতও। একটু আগে ওর শাশুড়ি বলে গেছে যে ওর মাসতুত দেওর মনিষ তার বস কে নিয়ে ওদের বাড়ি আসছে। মনিষ ওদের শ্বশুর বাড়িতে মানুষ সেটা ও শুনেছে। মনিষ একটা বড় কোম্পানি তে চাকরি করে, ওর শাশুড়ির খুব কাছের। নিচে থেকে শাশুড়ি তারা দেয়-এই বর্না, তৈরি হোয়ে নাও… ওরা ১০ মিনিটের মধ্যে ঢুকে যাবে। আর দেরি করা ঠিক হবে না। উঠে পড়ে বর্ণালি। আলমারি খুলে গোলাপি… Read Article →

আমি ছোট বেলা থেকেই সেক্স নিয়ে অনেকটা উতসাহি এবং সকল বিষয়ে আমার ব্যপক কৌতুহল। কেমন করে যেন সেক্স বিষয়ে আমার আগ্রহটা তখন থেকেই আমার মনের মাঝে ঢুকে গেছে। আমিও সকল সময় এই চিন্তাতেই থাকি। আমি ঢাকাতে বড় হয়েছি। ৮০ এর দশকে আমার ছেলেবেলা কাটে ঢাকার পূর্ব দিকের একটি এলাকাতে। সেই সময়টাতে ঢাকা অনেকটাই ফাকা ছিল, মানুষজনের এতটা আনাগোনা ছিল না। এমন সময় ছিল, সন্ধার পর রাস্তায় একটি লোক খুজে পাওয়া যেত না। আমাদের বাসার চারপাশেই খুবই ফাকা জায়গা ছিল। আমাদের বাসায় দুইটা বড় ঘর ছিল। একটি ঘরে তিনটা রুম। সেখানে আমি আমার মা,

আষাঢ় মাসের শেষ সপ্তাহ। গ্রামেরই পাশের আত্মীয় বাড়ীতে বিয়ে উপলক্ষে অনেক লোকজন এসেছে। যেহেতু আমি তখন সবে যৌবন প্রাপ্ত, তাই বাইরের বৈঠকখানায় ঘরের মধ্যে দরমার বেড়ার পার্টিশান করে আমার জন্য আলাদা পড়া আর শোওয়ার ব্যবস্থা হয়েছে। টিনের ঘর, টিনের বেড়া, মাটির মেঝে। হ্যারিকেনের আলোতে পড়াশোনা করতে হয়। একটা টর্চলাইটও রাখি রাতে বেরুতে হলে কাজে লাগবে বলে। আমার ঘরে একটা বড় টেবিল আর লম্বা বেঞ্চ পাতা। হাতলওয়ালা একটা চেয়ার আর শোবার জন্য পাতা চৌকিটা বেশ বড়সড়ই আছে, প্রয়োজনে আড়াআড়ি করেও ৩-৪ জনে শোয়া যায়। বিকেল থেকে টিপটিপ করে বৃষ্টি হচ্ছিল। আমার সমকামী ছুতোর বাড়ীর সখাকে মাঝেমধ্যে… Read Article →

চোখ বন্ধ করে বসে থাকি কিছুক্ষন। মিটি মিটি হাসি লেগেই ছিল মুখে। রিমি কিছুক্ষন নিরব হয়ে অপেক্ষা করল। তারপর বলল, ‘কি কর এমন চোখ বন্ধ করে? আমাকে চলে যেতে হবে তো, বেশী সময় নাই। চারটায় স্কুল ছুটি। সাড়ে চারটার মধ্যে বাসায় যেতেই হবে, নইলে পিটুনি।’আমি তখন এসব শোনায় নেই। আজকে প্রায় স্বপ্ন সত্যি হবার পথে। কদিন আগে যা চিন্তা করতাম তা সব আসছে মনে এখন।তিন মাস আগে যখন পাড়ার রাস্তায় রিমিকে দেখি, চোখ ঝলছে গিয়েছিল।সবুজ, সাদা স্কুল ড্রেসের উচ্ছল কিশোরী। ওর দিকে চোখ পড়তেই প্রথমে ওর বুকের দিকে নজর পড়ত। আমার ধারনা ৩৬সি না হয়েই… Read Article →

Scroll To Top