Monthly Archives: November 2014

কমল কুয়েত থেকে এবার ফিরে এসে বিয়ে করবে ঠিক করেছে। তিন টার্মে ছয় বছর কুয়েত থেকে বিশাল অংকের টাকার মালিক বনেছে। শুধু স্থানীয় ডাক ঘরে ৪০ লক্ষ টাকার এফ ডি করেছে। যার লভ্যাংশ দিয়েই বাকী জীবন চালিয়ে যেতে পারতো। জীবনে আর কোন আয়ের দরকার হতো না। তবুও মানুষের চাহিদার শেষ নাই, তার আরও টাকা চাই। তাই সে ছয় মাসের ছুটিতে এসে কিছু জমিন কিনে সেখানে চতুর্দিকে দেয়াল দিয়ে তিন তলা ফাউন্ডেশন বিশিষ্ট একতলা ডিজাইনেবল পাকা দালান বাড়ী ও বাড়ীর সৌন্দর্য বৃদ্ধি করার জন্য একটা কাচারী ঘর তৈরী করে। বাড়ী করার ফাঁকে ফাঁকে সে মেয়ে দেখতেও… Read Article →

ফাহাদ কিছুক্ষন নিরুত্তর থেকে বলল, ঠিক তোমার মত, ঠিক তোমার মত একটি মেয়ে এনে দিতে পারবে তুমি? এক্টুও পার্থক্য থাকতে পারবেনা , প্রয়োজনে যত টাকা লাগে আমি দেব, সারা জীবন তার পরিবারের খরচ বহন করব। পারবে তুমি তোমার মত একটি মেয়ে এনে দিতে? ভালবাসা কাকে বলে আমি তাকে শিখিয়ে দেব। ফাহাদ এর চোখের কোনে একটু পানি গড়িয়ে আসল। অবশিষ্ট খাওয়াটা সে আর খেলোনা, চলে গেল, আমিও পাথরের মত বাকি খাওয়াটা সামনে নিয়ে বসে রইলাম। আমি হুবুহু আমার মায়ের চেহারা, আমার মা জমজ, তার জমজ বোন টা ও হুবুহু তার একই চেহারা নিয়ে জম্মেছে, আমার একটা… Read Article →

স্বামীর বাল্য বন্ধু এসেছে বাড়ীতে, বিগত বার বতসর যাবত একে অপরের সাথে দেখা নেই,যোগাযোগ নেই, নেই কোন আলাপ পরিচয়। কে কোথায় কাজ করে সে বিষয়ে কারো সম্পর্কে কেউ অবগত ছিলনা। গত ঈদে আমরা স্বপরিবারে দেশের বাড়ীতে ঈদ উদযাপন করতে গেলে বার বতসর পর তাদের দেখা হয়। স্বামীর বাল্য বন্ধুর নাম ফাহাদ, ১৯৯৭ সালে আমার স্বামী কায়সার আর ফাহাদ একই সাথে স্থানীয় ডিগ্রী কলেজ থেকে ইন্তারমিডিয়েট পরীক্ষা দেয় , কায়সার পরীক্ষায় পাশ করলেও ফাহাদ পাশ করতে ব্যর্থ হয়। ব্যর্থতার ক্ষোভে, দুঃখে, এবং লজায় বাড়ী ছেড়ে পালিয়ে যায়। বাড়ির কারো সাথে তার যোগাযোগ পর্যন্ত ছিলনা। একমাত্র সন্তানের… Read Article →

আমার বন্ধু মনি তখন কলেজে ২য় বর্ষে পড়ে। তার পরিবারে তারা তিন জন অর্থাৎ মা, ছোট ভাই আর কাজের মাসি তমা। মনির বাবা চাকুরি করে চা বাগানে। প্রতি সপ্তাহে এক দিন শহরের বাড়ীতে আসেন। কি এক জরুরী দরকারে মনির মা, বাবা আর ভাই ঢাকা গেছে। যাবার সময় অনেক উপদেশ দিয়ে গেছে মনি আর কাজের

অনুপমার বাড়ি পৌঁছাতে প্রায় ছ’টা বেজে যায়। ওদিকে মেয়ের তর সয়না, আধা ঘন্টায় প্রায় ছয় সাত বার ফোন করে জিজ্ঞেস করেছে, দেবায়ন কতদুর পৌঁছাল। দেবায়ন বাস থেকে নেমে, ফোন করে জেনে নেয় ওর বাড়িতে যাবার রাস্তা। অনুপমার বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে একটুর জন্য থমকে যায়। বিশাল দুতলা বাড়ি, সামনে একটা ছোটো ফুলের

Scroll To Top