পাজি পোলা, কি খাওয়াইলা তুমি, অসুখ হইয়া যাইবো

আমাদের ঠিকা বুয়া তার গার্মেন্টসের মেয়েকে আমাদের বাসায় রেখে গিয়েছিল। ষোল বছর আগের কথা, সীমার চেহারাটাই শুধু বেশী মনে আছে, বয়সে ও হয়তো সতের আঠারো ছিল। ছোটবেলায় ছেলেদের স্ট্যান্ডার্ড খুব উপরে থাকে, বুয়ার মেয়েকে নিয়ে ফ্যান্টাসাইজ থাক দুরের কথা, আমি ওর কাছ থেকে দু তিন হাত দুরত্ব রেখে চলতাম। আম্মা কিভাবে যেন একটা ট্যাবু ঢুকিয়ে দিয়েছিল যে “ওরা” নোংরা। বাংলাদেশের মহিলারা এই ক্ষমাহীন অন্যায়টা করতো, এখনও করে। মেয়েরা পুরুষের হাতে নিগৃহিত হয় এটা বেশী শোনা যায়, কিন্তু এই মেয়েদেরই একটা বড় অংশ যে নিগৃহের সাথে জড়িত এটা সেভাবে শোনা যায় না। গৃহবধুর খুন্তির ছ্যাকা খেয়ে কাজের মেয়ের নিহত হওয়ার খবর ইদানিং অবশ্য পত্রিকায় আসতে Continue reading “পাজি পোলা, কি খাওয়াইলা তুমি, অসুখ হইয়া যাইবো”

 

তোমার ক্ষুধা মেটানোর কেউ নেই?

আমার বাবা আজ বিয়ে করছে. আমার স্টেপ মম এর নাম কামিনী. নাম যেমন সভাব তেমন.আসছে এক দিন হলো, বুট চোখে সুধু কামনার আগুন. আমার রুম এর পাশেই আমার দাদ এর রুম. রাত একটা বাজে. বিছানার কচ কচ অবজ বাড়তে লাগলো. কিছু খন পর আমার স্টেপ মম এর শীত্কার সুনতে লাগলাম. সেই কি সিতকার. আমার দাদ এর ও গর্জন সুনতে লাগলাম. 15মিন পরে দাদ তার 15 বসরের জমানো মাল ঢেলে দিল র যুদ্ধ বন্ধ হলো. রাত এ আরো তিন বার যুদ্ধ হইসিলো. আমার তো সারা রাত ঘুম হই নাই. ধন বাবা জি সেল্লিং এর দিক এ তাকায় সিল. সকাল এ ঘুম ভেঙ্গে দেখি পান্তের কাপড় সকত. তার মানে রাত এ মাল ঔট হইসে. হবেই না কেন, যে 3ক্ষ সুনলাম. পান্ট চাঙ্গে করে নাস্তার তাবলে এ গেলাম. স্টেপ মম দেখি পচা দুলিয়ে দুলিয়ে হাটছে, মাগির মনে হয় ক্ষুধা মিটে নয়. Continue reading “তোমার ক্ষুধা মেটানোর কেউ নেই?”

 

জামাইয়ের কাছে আবার লজ্জা কিসের?

এই রিকশা কলাবাগান যাবে?’ ‘যামু’ ‘কত?’ ‘পচিশ ট্যাকা’ ‘এখান থেকে কলাবাগান পচিশ টাকা নাকি? বিশ টাকা যাবে?’ ‘উঠেন’ হাসু মিয়া রিকশায় উঠে প্যাডাল মারতে শুরু করে। সে ঢাকা শহরে রিকশা চালায়। গ্রাম থেকে বহু আগে এতিম হাসু একটা চাকুরীর আশায় এসেছিল ঢাকায় কিন্ত কোন উপায় না পেয়ে তাকে রিকশা চালানো ধরতে হয়েছে। সে একা মানুষ বলে এতেই তার খেয়ে-পড়ে ভালোই চলে যায়। তবে সুখ কি জিনিস তা হাসু জানে না। একা মানুষের আবার সুখ কিসের? তার সাথে বস্তিতে যে কয়জন রিকশাওয়ালা থাকে তারা প্রায় সকলেই বিয়ে করে নানা অর্থাভাব সত্ত্বেও বউ বাচ্চা নিয়ে সুখে আছে। তবে আজ রহিমের জন্য অন্যরকম একটা দিন। আজ ওর বিয়ে। কনে বস্তিরই এক ষোড়শী বালিকা, সালমা। মেয়েটার বাপ মা-মরা পাঁচ মেয়ে নিয়ে কন্যাভারে জর্জরিত তাই সালমা দেখতে-শুনতে মোটামুটি সুন্দরী হলেও ভালো ঘরে বিয়ে Continue reading “জামাইয়ের কাছে আবার লজ্জা কিসের?”

 

তোর আপাকে বলিস না, কেমন?

গ্রামের দিকে আমি বিয়ে করেছি। আমার বউ সবে মাত্র ইন্টার পাশ করেছে। বিয়রে পর আমার বউ কে ঢাকা নিয়ে এসেছি। আমি একটা ছোট সরকারি চাকরি করছি। আমার জবটা হচ্ছে টুরিং জব। এইজন্য মাসে ৬/৭ দিন ঢাকার বাহিরে থাকতে হয়। এই কারনে একটি কাজের মেয়ে রাখা হয়েছে। বাসায় কেবল একটি কাজের মেয়ে। বয়স ১৪/১৫ হবে। কাজের মেয়েটির নাম শাহানা। আমার শ্বশুড় বাড়ি থেকে ওকে আনা। আবার ও আমার দুর সম্পর্কের খালাত শালি। সে কারনে সে আমাকে দুলাভাই ডাকে। দেখতে শুনতে ভালই, শরিরের গঠন সুন্দর, ব্রেস্ট বেশ বড় বড় আর সব সময় পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকে। আমার বউ এর পুরোন ছালোয়ার কামিজ গুলো ওই পড়ে বলে ওকে আরো বেশি সুন্দর লাগে। আমি কখনো শাহানার প্রতি খারাপ নজর দেইনি। নতুন বিয়ে করেছি, ৬/৭ মাস হয়েছে। বউ এর কাছে ফেইথ থাকবার চেষ্টা করেছি। বাসার ভেতর যুবতি Continue reading “তোর আপাকে বলিস না, কেমন?”

 

এক নতুন আনন্দ ইজ্জত রক্ষায়

সুন্দর চেহারা সোমার । কুড়ি বছরের যুবতী আজ । পুরুষের শরীরের ছোঁওয়া নারীর জীবনে কি এনে দেয় তার কিছুই সে জানে না । গাঁয়ের মেয়ে । বাড়িতে বাবা মায়ের কড়া শাসন । তাই সে না পেরেছে গোপনে কোন ছেলের সাথে কথা বলতে আর না পেরেছে কোন ছেলেকে ছুঁয়ে দেখতে । তাই মাঝে মাঝে সোমার মন উঁকি মেরে দেখতে চায় কোন অজানা ছেলেকে । গরিব ঘরের মেয়ে । তাই তার মায়ের কড়া আদেশ- মেয়েদের ইজ্জত আসল, সেই ইজ্জত একবার হারিয়ে ফেললে আর ফেরৎ পাওয়া যায় না । তখন সেই মেয়েকে আর কেউ বিয়ে করতে চায় না । বিয়ে হবার আগে পর্যন্ত একজন মেয়ের কাজ হলো ইজ্জত রক্ষা করে এগিয়ে চলা । তারপর বিয়ে । তখন তার ইজ্জত তার স্বামী ভোগ করে । স্বামী তখন তার কাছে দেবতা । আর তখন তার স্বামী তার স্ত্রীর ইজ্জত রক্ষা করে । সোমার বিয়ে হলো । বিয়ের রাতে স্বামীর স্পর্শে সে মহাসুখ Continue reading “এক নতুন আনন্দ ইজ্জত রক্ষায়”