চাকরি করতেন আসামে ৷ গঙ্গার মা বাবা চা বাগানেই কাজ করেন , আর তাদের অল্প পয়সায় গঙ্গাকে লেখা পড়া করাতে পারবেন না বলে , লাচ্ছারাম গঙ্গারাম কে পাঠিয়ে দিলেন আসামে ৷ গঙ্গা সবে মাধ্যমিক পাশ করেছে ৷ পড়ার বালাই বাতাস নেই, দিন ভর চা বাগানের অল্প বয়েসী মেয়েদের দিকে তাকিয়ে তাকিয়ে কেটে যায় তার সময় ৷ লাচ্ছারাম পাহাড়ি বলে গঙ্গার শরীর মজবুত পেটানো ৷ আর দুগ্গা জানেন তার ছেলে গায়ে গতরে বেড়ে উঠেছে ৷ লেখা পড়া না শিখলে তার ছেলে বখে যাবে আর তাদের ছেলে মানুষ করার সপ্ন ভেঙ্গে যাবে ৷ লাচ্ছা রাম আর দুগ্গা… Read Article →

কুমকুম অনাথ হয়েছিলো অল্পবয়সে। বাবা-মা মারা গেলো রোড এক্সিডেন্টে। খুব অল্পই মনে আছে তাদের কথা। কি-ই বা বয়স! নিঃসন্তান কাকা-কাকীর কাছে মানুষ, যারা বুঝতে দেয় নাই পিতা-মাতার অভাব, নিজের সন্তানের মতই মানুষ করেছে।আজ সে উচ্ছল তরুণী। বিছানায় শুয়ে ছটফট করছে। মন ভালো নেই, অসহায় বোধকরছে। তার স্বপ্নের পুরুষ, তার ভালোবাসা! সে-ই কিনা তাকে কষ্ট দিলো! শ্যামল জানালো, বিয়ে করতে যাচ্ছে শমিতাকে, যার সাথে চলছে ইটিস পিটিস। এটা ঠিক, কুমকুম শমিতাকে ঘৃণা করে, তা না, বরং পছন্দই করে। কিন্তু মেনে নিতে পারছে না, শ্যামলের জীবনে তার অবস্থানটা দখল করে নেবে অন্য কেউ।বছর ছয়েক আগে, কাকীর মৃত্যুর… Read Article →

আমি ইউনিভার্সিটিতে থার্ড ইয়ারে পড়ি। পড়াশুনা আর পাশাপাশি পার্ট টাইম জব করতাম। আমরা এক ভাই এক বোন। বোন ছোটো, স্বপ্না, মাত্র কলেজে ভর্তি হয়েছে। সে এতো কিউট আর সেক্সি যে আপনাদেরকে আমি বলে বোঝাতে পারবো না। আমার অনেক মেয়ের সাথে পরিচয়, কিন্তু স্বপ্নার মতো কেউ আমাকে এতোটা এট্রাক্ট করতে পারে নি। বয়সের তুলনায় ওর দুধগুলো এতো বড় বড় এবং এতো সুন্দর যে কি বলব।স্বপ্নার প্রতি এই নিষিদ্ধ ভালো লাগা আমাকে মাঝে মাঝে খুব কষ্ট দিতো। আমি যে সমাজে বাস করি সেখানে এই ধরনের ভালোলাগা পাপ, খারাপ কাজ হিসাবে দেখা হয়। এছাড়া মাঝে মাঝে কেউ যখন… Read Article →

অফিসের ছুটি প্রায় আধ ঘন্টা আগে হয়ে গেছে। চুপচাপ একা একা কেবিনে বসে ল্যাপটপে মেল চেক করছি। যাদের নিজেদের গাড়ি আছে তারা অনেকে চলে গেছে। বাইরে ঝড় বৃষ্টি এখন কমেনি, সেই বিকেল চারটে থেকে শুরু হয়েছে। আমার একটু তাড়া ছিল বের হবার কিন্তু বের হবার জো নেই। রেজিগ্নেশান দিয়ে দিয়েছি গত সপ্তাহে, এক বড় কম্পানিতে ভাইস প্রেসিডেন্ট টেকনিক্যাল হতে চলেছি কিছু দিনের মধ্যে। বেড় হতে হবে আমাকে, ঘোরার চেয়ে বড় কথা হচ্ছে সেই জায়গা, কিন্তু বৃষ্টিতে কি করে বের হব সেটা বড় চিন্তা। কেবিনের দরজা খুলে বেড়িয়ে দেখলাম দ্বিতীয় সিফটের ইঞ্জিনিয়ার গুলো বসে আছে, বেশির… Read Article →

আমার বয়স তখন ১৬ / ১৭। উঠতি যৌবন। নিজেকে সামাল দিতে কস্ট হয়। এর মধ্যে আমাদের বাসা বদল করল। পাশের বাসায় থাকতো এক আন্টি। আন্টির বয়স বেশি না। ২৩ কি ২৪ হবে। ৩ / ৪ বছর হইলো বিয়ে হয়েছে। একটা ছোট বাচ্চাও আছে। নাম অমি। আমি ছোট বেলা থেকেই অনেক মেধাবি ছিলাম। তাই আমাকে অনেকেই আদর করে অনেক কিছু খাওয়াত। ছোট বেলায় তো কোলে করে নিয়ে আদর করতো। যাই হোক ঐ বাসায় যাবার পর থেকেই আমার ঐ আন্টির উপর নজর পরে। খুব ইচ্ছা ছিল আন্টিকে নেংটা দেখব। কিন্তু কিভাবে তা বুঝে উঠতে পারিনা। যাই হোক… Read Article →

Scroll To Top